লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প থেকে ফোন করা হচ্ছে মহিলাদের। চাইতে পারে এই 2 টি কাগজ! তৈরী রাখুন আগে থেকে। জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- পুজোর আগে হাসি ফুটেছে এ রাজ্যের মহিলাদের । কেননা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দেওয়া কথা রেখেছেন । ভোটের আগে ইশতেহারে প্রকাশ করেছিলেন সেখানে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের কথা তার মাধ্যমে তিনি জানিয়েছিলেন যে রাজ্যের মহিলাদেরকে পাঁচশ টাকা হাজার টাকা করে সরকারি অনুদান দেবেন প্রতিমাসে । সেই অর্থে অনেকেই হয়তো কথাটা প্রথম দেখে বিশ্বাস করেনি।

কিন্তু গত ১৫ ই আগস্ট থেকে ১৬ ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গোটা রাজ্য জুড়ে যে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছিল সে ক্যাম্পে উপচে পড়া ভিড় দেখে রীতিমত অবাক হয়ে গেছিল রাজ্য সরকার নিজেও । প্রথম দিনে প্রায় ১০ লক্ষের বেশি মহিলারা আবেদন করেছিল লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য। পাশাপাশি লক্ষ্মী গন্ডার প্রকল্প নিয়ে একাধিক সমস্যা ছিল রাজ্যের মহিলাদের । সব সমস্যার সমাধান ইতিমধ্যে হয়ে গেছে।

যে সমস্ত মহিলাদের সিঙ্গেল একাউন্ট নেই জয়েন্ট একাউন্ট আছে তারাও আবেদন করতে পারবে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য এমনটা জানিয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তার পাশাপাশি অনেকে আবার এসএমএস আসেনি। সে ক্ষেত্রে কিভাবে স্ট্যাটাস চেক করা হবে তা বিভিন্ন ভিডিওর মাধ্যমে আমরা দেখেছি । তবে সম্প্রতি লক্ষী ভান্ডার তরফ থেকে বেশ কয়েকজনকে ইতিমধ্যে ফোন করা শুরু হয়ে গিয়েছে।

এমন অনেক ঘটনা দেখা যাচ্ছে যেখানে কারণ একটি এসএমএস এসেছে অথচ ব্যাংকে টাকা প্রবেশ করে গেছে। আবার কখনও কখনও দেখা যাচ্ছে দুইটি এসএমএস আসার পরও ব্যাংকে টাকা প্রবেশ করেনি। সে ক্ষেত্রে এই যে অসামঞ্জস্য সৃষ্টি হচ্ছে সেটা মেটাবার জন্য লক্ষী ভান্ডার তরফ থেকে অর্থাৎ সরকারের তরফ থেকে ফোন করা হচ্ছে গ্রাহকদেরকে।

কী কারণের জন্য তাদের ব্যাংক একাউন্টে টাকা প্রবেশ করছে না সেটা সরাসরি তার সামনে তুলে ধরা হচ্ছে এবং যদি কারোর কেওয়াইসি কমপ্লিট না থেকে থাকে তাহলে তাদেরকে বলা হচ্ছে অতিসত্বর ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করতে আধার কার্ড এবং প্যান কার্ড নিয়ে। এবং কেওয়াইসি করিয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে যাতে তারা সরাসরি লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পেয়ে যান।

Back to top button