ছাত্র-ছাত্রীরা কবে পাবে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের টাকা? স্পষ্ট জানিয়ে দিল নবান্ন! রইল বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- এই রাজ্যের মহিলাদের হাত খরচ হোক বা কৃষক বন্ধুদের মাসিক ভাতা হোক এমনকি ছাত্র-ছাত্রীদের আর্থিক সহায়তা সবদিক থেকে কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার এগিয়ে রয়েছে অন্যান্য বাকি সকল রাজ্য থেকে । একাধিক সুযোগ-সুবিধা করে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ বাসীদের জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন যে স্টুডেন্টদের জন্য একটি ক্রেডিট কার্ড লঞ্চ করা হবে ।

যার মাধ্যমে স্টুডেন্টরা অর্থাৎ ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার খরচ বহন করতে পারবে । টাকা পয়সার অভাব কোনদিন পড়াশোনা বন্ধ না হয়ে যায় সে ব্যাপারে বদ্ধপরিকর রাজ্য সরকার ।।কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কবে থেকে ঢুকবে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের একাউন্ট টাকা । স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে প্রতিটি ছাত্র ছাত্রীদেরকে অর্থাৎ এই পশ্চিমবঙ্গে স্থায়ী বাসিন্দা ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ১০ লক্ষ টাকা করে শিক্ষাগত লোন দেওয়া হবে ।

যেটি ফলে ফলে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা টাকা পয়সার অভাবে আর কখনো পড়াশোনা থেকে বঞ্চিত থাকতে পারবেনা । স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড হলো এক ধরনের কার্ড যেখানে আপনাকে ১০ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য করা হবে সরকারের পক্ষ থেকে । আপনি এই ঢাকা ব্যাংক থেকেও নিতে পারেন । কিন্তু সেক্ষেত্রে আপনাকে গ্যারান্টার হিসেবে কিছু জমা রাখতে হবে ব্যাংকে । কিন্তু স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টাকা নিলে কোন রকম কোন গারেন্টার এর প্রয়োজন পড়বে না । পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার নিজস্ব এর গরেন্টার ।

এর পাশাপাশি ব্যাংক থেকে লোন নইলে দুধ সমেত পরিশোধ করতে হতো । সেই পরিমাণ সুদ কিন্তু এখানে করতে হবে না ।খুব অল্প মাত্রায় সুদ প্রদান করতে হবে। এর পাশাপাশি কখনই আপনাকে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের তরফ থেকে টাকা জমা দেওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো বা চাপ দেওয়া হবে না । ১৫ বছরের মধ্যে স্বল্প করে আপনি টাকা প্রদান করে দিতে পারেন ।অবশ্যই এটি চাকরি পাওয়ার পর । সরকারি তথ্য অনুসারে মনটা জানাচ্ছে অন্তত তিন হাজার জনের লোন মঞ্জুর করবে রাজ্য সরকার । ইতিমধ্যে এক লক্ষের বেশি আবেদন জমা পড়েছে ।

তার মধ্যে ৫০% আবেদন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের উপর হয়েছে এবং বাকি ৫০% কো-অপারেটিভ ব্যাংকের করা হয়েছে । এমনকি প্রাইভেট কিছু ব্যাংক রয়েছে যারা স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের আবেদন পত্র বাতিল করেছে । সেই সমস্ত ব্যাংকগুলোকে সতর্ক বার্তা দিয়েছে নবান্ন । তারা জানিয়েছে যদি রাজ্য সরকারের প্রকল্প তারা সহায়তা করে তাহলে ব্যাংকের থেকে একাউন্ট তুলে দেবে তারা । তবে এমন টা জানা যাচ্ছে যারা আবেদন করেছেন এবং যাদের আবেদন মঞ্জুর হয়েছে তারা পুজোর পর তাদের একাউন্টে টাকা পেয়ে যাবেন ।

Back to top button