যেকোনো তরকারিকে দ্বিগুণ টেস্টি বানাতে ব্যবহার করুন খুব সহজ ঘরোয়া উপায়ে তৈরি এই দুর্দান্ত মশলা!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের রান্নাঘরে যেকোনো রান্না তৈরি করতে গেলেই সব থেকে প্রয়োজনীয় যে উপকরণ সেটা হলো মসলা। মসলা ছাড়া কখনই কোন ভাবে রান্নায় স্বাদ নিয়ে আসা কিন্তু একেবারেই সম্ভব হয় না। আজকাল বাজারের বিভিন্ন দোকানে কিন্তু নানান ধরনের স্বাদের মসলা কিনতে পাওয়া যায়। তবে সেগুলোতে একেবারে ঘরোয়া এবং পারফেক্ট স্বাদ কিন্তু থাকে না।

কারণ বাজারে যে মসলাগুলো তৈরি করা হয় সেগুলোতে নানান ধরনের ফ্লেভার মেশানো হয়ে থাকে। স্বাভাবিকভাবেই এগুলির স্বাদে অনেকটাই পরিবর্তন চলে আসে। অর্থাৎ এগুলিকে কিন্তু আর খাঁটি মসলা বলা যায় না। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তৈরি করে নেব কিচেন কিং সবজি মসলা, আসুন জেনে নেওয়া যাক পদ্ধতি। প্রসঙ্গত এই মসলা যে কোন তরকারি বা সবজিতে যদি আপনারা ব্যবহার করেন ফলাফল কিন্তু হাতেনাতেই দেখতে পারবেন।

কিচেন কিং সবজি মসলা তৈরির পদ্ধতি:

১) এই মসলা তৈরি করতে হলে প্রথমেই আপনাদের একটি প্যানের মধ্যে সাবু ধনে নিয়ে নিতে হবে চার চামচ, দুই চামচ জিরা, এক চামচ মৌরি, দুই চামচ কালো মরিচ, এক টেবিল চামচ লং, ২ টেবিল চামচ শাহ জিরা, আধা চামচ মেথি দানা, চার থেকে পাঁচটা ছোট এলাচ, দুইটি বড় এলাচ, একটি স্টার অ্যানিস, সামান্য পরিমাণে জায়ফল, সামান্য পরিমাণে দারচিনি, আটটা শুকনো লঙ্কা, চার থেকে পাঁচটা তেজপাতা।

এরপর লো ফ্লেমে আপনাদের শুকনো খোলায় এই সমস্ত মসলাগুলোকে রোস্ট করে নিতে হবে।তবে খেয়াল রাখবেন কোনোভাবেই যাতে অতিরিক্ত তাপে মসলা জ্বলে না যায়। প্রসঙ্গত আজকে যে মসলাটি আপনারা তৈরি করছেন সেটি কিন্তু ডাল তরকারি থেকে শুরু করে অনেক রান্নাতেই আপনারা ব্যবহার করতে পারবেন। মোটামুটি দুই মিনিট সময় পর্যন্ত উপকরণ গুলি গরম করে নেওয়ার পরে মোটামুটি ৫ টেবল চামচ পরিমাণ কশুরি মেথি এর মধ্যে ঢেলে দিতে হবে। গ্যাস জ্বালিয়ে রাখার প্রয়োজন নেই মসলার যে ভাপ থাকবে সেটাতেই কসুরি মেথি রোস্ট হয়ে যাবে। এরপর মসলাগুলোকে ঠান্ডা করে নিন।

২) এরপর এই সমস্ত মসলাগুলোকে আপনাদের গ্রাইন্ডিং জারে নিয়ে নিতে হবে। আধা চামচ হীং, আধা চামচ হলুদ এবং এক চামচ কালো লবণ দিয়ে দিতে হবে এর মধ্যে। এছাড়াও যোগ করে দিন স্বাদমতো লবণ, এক চামচ আমচুর পাউডার এবং এক টেবিল চামচ পুদিনা। এছাড়াও এক টেবিল চামচ কর্নফ্লাওয়ার যোগ করে সমস্ত মিশ্রণটিকে এবার ভালো করে গ্রাইন্ড করে নিতে হবে।

ব্যাস এরপর তৈরি হয়ে গেল কিচেন কিং সবজি মসলা। যদি আপনারা দীর্ঘদিন পর্যন্ত এই মসলা সংরক্ষণ করতে চান তাহলে যে কোন কাচের জারে বা এয়ারটাইট কন্টেইনারে কিন্তু সহজেই রেখে দিতে পারেন।

এই মসলার প্রয়োগ পদ্ধতি:

এই মসলার প্রয়োগ পদ্ধতি দেখানোর জন্য আমরা আপনাদের সাথে একটি রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি। তার জন্য গ্যাসে একটি করায় বসিয়ে তাতে প্রথমেই পর্যাপ্ত পরিমাণে তেল দিয়ে গরম করে নিন। এর মধ্যে এক টেবিল চামচ জিরে, আদা কাঁচা লঙ্কা বাটা দিয়ে সামান্য নাড়াচাড়া করে ছোট ছোট করে কাটা আলুর টুকরো দিয়ে দিতে হবে। এরপর আলু সামান্য ভাজা ভাজা হয়ে গেলে আপনাদের রান্নাটির মধ্যে যোগ করে দিতে হবে স্বাদমতো লবণ, সামান্য পরিমাণে হলুদ গুঁড়ো,হাফ চামচ লঙ্কার গুঁড়ো এবং সামান্য পরিমাণে মটর। এবার সামান্য নাড়াচাড়া করে এই রান্নাটির মধ্যে যোগ করে দিন এক টেবিল চামচ ধনে গুঁড়ো।

আবারো কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে এতে সামান্য পরিমাণে জল ঢেলে দিন। তারপর লো ফ্লেমে পাশ থেকে ছয় মিনিট পর্যন্ত কুক করে নিন। একবার ছোট কোন চামচ দিয়ে হালকা তুলে দেখে নেবেন আলু ভালোভাবে সেদ্ধ হয়ে গিয়েছে কিনা! পরবর্তী ধাপে আপনারা যে কিচেন কিং সবজি মশলা তৈরি করে রেখেছেন সেখান থেকে মোটামুটি এক থেকে দুই চামচ পরিমাণ মসলা নিয়ে এই রান্নাটির মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। তারপর বেশ কিছুক্ষণ সময় পর্যন্ত আপনারা নাড়াচাড়া করতে থাকুন। সবশেষে মোটামুটি চার থেকে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত টাকা দিয়ে রেখে দিলে তৈরি হয়ে যাবে শুকনো আলু মটরের সবজি। কিচেন কিং সবজি মশলার ব্যবহারে এই আলু মটরের সবজি খেতে কতটা ভালো হয় তার প্রমাণ আপনারা হাতেনাতেই পাবেন।

Back to top button