এই 4 জেলায় দেওয়া হবেনা লক্ষীর ভান্ডারের টাকা! কড়া ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন: মহিলাদের জন্য সুখবর! কয়েকটি জেলায় লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের দ্বিগুণ টাকা পেতে চলেছেন মহিলারা। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন,সম্প্রতি এমনটাই জানিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু হঠাৎ কেন এই দ্বিগুণ টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন তিনি!প্রসঙ্গত চলতি বছরে বিধানসভা নির্বাচন শুরু হওয়ার আগেই লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

খুব অল্প সময়ের মধ্যেই তাঁর এই প্রকল্প রাজ্যের মহিলাদের মধ্যে জনপ্রিয়তা লাভ করে। মাসিক ভিত্তিতে এই প্রকল্পে সাধারণ মহিলাদের 500 টাকা এবং এসসি, এসটি প্রভৃতি ক্যাটাগরির মহিলাদের 1000 টাকা দেওয়া হয়। এক কথায় এটি মহিলাদের জন্য অভিনব নতুন একটি উদ্যোগ। বিশেষত যারা গৃহবধূ তাদের জন্য এই প্রকল্প অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

নির্বাচনে জয়লাভ করার পর আগস্ট মাসেই এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছিল।মাস দুয়েক সময়ের মধ্যেই প্রায় 1 কোটি 80 লক্ষ আবেদনপত্র সরকারের ঘরে জমা পড়ে।এরপর প্রায় দেড় কোটি মহিলার আবেদনপত্র মঞ্জুর করা হয়।পুজোর আগেই যাতে সেই সব মহিলাদের একাউন্টে টাকা পৌঁছানো যায় তার জন্য পুরোদমে কাজ করছিলেন আধিকারিকেরা। জানা গিয়েছিল অক্টোবর মাসের প্রথম দিন থেকেই এই টাকা দেওয়ার কাজ শুরু হবে। সেইমতো ইতিমধ্যেই প্রত্যেক জেলাশাসকের দপ্তরে নবান্নের তরফে টাকা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। সবথেকে বেশি আবেদনপত্র এসেছিল দক্ষিণ 24 পরগনা জেলা থেকে।

কিন্তু সম্প্রতি এই প্রকল্প নিয়ে বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী। তার ঘোষণা অনুযায়ী আগামী 30 শে অক্টোবর রাজ্যের চার জেলায় উপনির্বাচন রয়েছে। তাই সেই সব এলাকার মহিলারা নির্বাচনী আদর্শ আচরণ বিধি চালু থাকায় এই প্রকল্পের টাকা পাবেন না। তবে যাতে মহিলাদের কোন সমস্যা না হয় সেই কারণে নভেম্বর মাসে একবারে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর এই দুই মাসের টাকা পেতে চলেছেন মহিলারা।

তাই এখনো যদি তারা টাকা পেয়ে না থাকেন তাহলে চিন্তার কোন কারণ নেই। প্রসঙ্গত জানা যাচ্ছে এই প্রকল্পের জন্য রাজ্য সরকার ইতিমধ্যেই 2 কোটি 48 লাখ 60 হাজার টাকা বরাদ্দ করেছে।দক্ষিণ 24 পরগনার জন্য এই খাতে বরাদ্দ করা হয়েছে 29 লাখ 81 হাজার টাকা। জলপাইগুড়ির জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে 4 লাখ 77 হাজার। অপরদিকে মালদহের জন্য 10 লাখ 71 হাজার, পশ্চিম বর্ধমানের 10 লক্ষ 28 হাজার, পশ্চিম মেদিনীপুরে 14 লক্ষ 27 হাজার, পুরুলিয়ার 6 লাখ 91 হাজার, দার্জিলিং 4 লক্ষ 69 হাজার এবং হুগলির জন্য 13 লক্ষ 65 হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

Back to top button