গ্রাম্য পদ্ধতিতে দারুন কায়দায় এইভাবে কাতলা মাছ রান্না করলে তার স্বাদ হয় দুর্দান্ত, রইলো স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতি ভিডিও সহ!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- ছোট অনুষ্ঠান বাড়ি হোক বা বাড়ির খাবারের পরিবেশন করতে পারেন মিলবে অনেকখানি প্রশংসা । সময় খুব কম লাগে তার পাশাপাশি খুব অল্প ব্যয় করা সম্ভব । তাই এরপর থেকে রাতে বা দুপুরের কোন সমস্যা থাকলে এটি আপনি বাড়িতে তৈরি করে পরিবেশন করতে পারেন অনায়াসে এর পাশাপাশি আমাদের মধ্যে অনেকেই ভোজন রসিক হয় । অর্থাৎ তাদের খাবার অত্যন্ত প্রিয় হয় । রাস্তাঘাটে যেকোনো জায়গায় বেরোলে যে জিনিসটি তারা ভুলে না সেটি হলে খাবার । এই সেই সমস্ত খাবার বা ভোজন রসিক মানুষদের জন্য একটি সুসংবাদ ।

কারণ আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমি এমন এক ধরনের রেসিপি আপনাদের সামনে নিয়ে এসেছি যা অন্যান্য বাকি সমস্ত রান্নার স্বাদ কে টে-ক্কা দেবে । আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে আমি এই মুহূর্তে কোন খাবার রান্নার কথা বলতে চলেছি? জানাবো আপনাদের বিস্তারিত । প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের সুস্বাদু রান্না খেতে আমরা প্রত্যেকেই পছন্দ করি। আর সেটা যদি হয় মাছের কোনও পদ, তাহলে তো কথাই নেই!

বাঙালি মাছ খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তাই, আজ আমরা আপনার জন্য আজকে নিয়ে এসেছে এমন এক ধরনের রেসিপি যেটি অন্যান্য চিকেনের থেকে যথেষ্ট পরিমাণে আলাদা । এই রেসিপির নাম হল মাছের কালিয়া প্রথমে কাতলা মাছের পিস গু-লিকে ভালো রকম ভাবে নুন এবং হলুদ দিয়ে একটি পাত্রে ঢাকা দিয়ে রেখে দিন কিছুক্ষণের জন্য । তারপর একটি ব্লেন্ডারে তৈরি করে নিন এর মসলা । এবং এর মসলা তৈরি করতে লাগবে একটি পিয়াজ একটি টমেটো চারটে রসুনের কোয়া ৫-৬ টা লঙ্কা জিরেগুঁড়ো ,

ধনেগুঁড়ো সামান্য পরিমাণ হলুদ ও সামান্য পরিমান জল ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে এর মসলা। এরপর কড়াই মধ্যে তেল দিয়ে মাছগুলোকে ভেজে নেবেন এবং সেই তেলের মধ্যে দিয়ে দেব একটা তেজপাতা এলাচ । এরপর দিয়ে দেবো আগে থেকে তৈরি করে রাখা মসলা সেই তেলের মধ্যে এবং বেশ কিছুক্ষণ ধরে সেটি ভালো মতন ভাবে কষিয়ে নেবো । কষিয়ে নেওয়ার পর তার মধ্যে দিয়ে দেব জল এবং দুই থেকে তিন মিনিট ফুটিয়ে নেব । তারপর তার মধ্যে দিয়ে দেবো আগে থেকে ভেজে রাখা মাছ গু-লি । পুনরায় ৫-৬ মিনিট ধরে ঢাকা দিয়ে দিলেই তৈরি হয়েছে মাছের কালিয়া।

Back to top button