পশ্চিমবাংলায় কবে থেকে চলবে লোকাল ট্রেন, জানিয়ে দিলো রেল কর্তৃপক্ষ!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- প্রতিনিয়ত দানা বাঁ-ধছে বি-ক্ষোভ রাগ অভিমানের । তার কারণ লোকাল ট্রেন । একদমই ঠিক শুনেছেন যারা লোকাল ট্রেনের উপর নির্ভরশীল অর্থাৎ অফিস যাওয়ার জন্য লোকাল ট্রেনের উপর নির্ভরশীল তারা অফিস যেতে পারছে না । অথচ সেই সমস্ত অফিসের কর্মচারীদের 25% কর্মচারী হাজিরা দিতে হচ্ছে ।

কিভাবে তারা অফিসে পৌঁছে যাবে সেই বিষয়ে একাধিক প্রশ্ন ।অপরদিকে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সরকারি কর্মচারীদের জন্য স্পেশাল কিছু ট্রেন চালানোর ব্যবস্থা করা হয় । যার ফলে শুধুমাত্র সরকারি কর্মচারী যাতায়াত করতে পারে এর ফলে মানুষের মনে জন্মেছে রা-গ অভি-মান।

প্রতিনিয়ত প্রশ্ন উঠে আসে যে কবে থেকে চলবে লোকাল ট্রেন এর উত্তর হয়তো আমাদের অনেকেরই অজানা রয়েছে । এই নিয়ে চলছে বিক্ষোভ । সোমবার সকালে যখন ডায়মন্ড হারবার লোকাল সোনারপুর স্টেশনে এসে পৌঁছায়, সেই সময় অনেক নিত্যযাত্রী লোকাল ট্রেনে উঠতে চান। কিন্তু তারা সরাসরি রেল পুলিশের বাধার মুখে পড়েন।

তারপরই ট্রেনের সামনে বসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তারা। তাদের দাবি, ” দিদির কাছে অনুরোধ ট্রেন চালানো হলে সব চালানো হোক, না হলে কোন ট্রেন চালানো হবে না। এভাবে কিছু লোক যেতে পারছেন কিছু পাচ্ছেন না। এভাবে কতদিন পেটে ভাত যোগাবো?”এই বিক্ষোভের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন সাধারণত মহিলারা ।

পুলিশের উপস্থিতিতে বিক্ষোভ সামাল দেওয়া গেলে পরবর্তী ক্ষেত্রে আবার বিক্ষোভ শুরু হয় এবং রেল অবরোধ শুরু হয়। এ বিষয়ে পূর্ব রেল কর্তারা চিন্তা প্রকাশ করেছেন এবং জানিয়েছেন যে তাদের হাতের বিষয়টি নেই আর । কারণ ইতিমধ্যে রাজ্য সরকারকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন যে তারা করোনা বিধি মেনে ট্রেন চালাতে সমস্ত রকম দিক থেকে প্রস্তুতি ।

ইতিমধ্যে ট্রেনগুলোকে স্যানিটাইজার করা হচ্ছে কিন্তু রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো উত্তর মেলেনি। রেলের ওই চিঠিতে লেখা ছিল, লোকাল ট্রেন চালাতে প্রস্তুত পূর্ব রেলওয়ে কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে লোকাল ট্রেন চালানোর অনুমতি দেয়নি রাজ্য সরকার। কিন্তু স্টাফ স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বেড়ে গেছে।

কয়েকজন কাজে যেতে পারছেন আর কয়েকজন পারছেন না, এই নিয়েই মূলত নিত্যযাত্রীদের মধ্যে ক্ষো-ভ দানা বেঁ-ধেছে।তার পাশাপাশি জানা গেছে রাজ্য সরকার যেদিন অনুমতি দেবে তারপর দিন থেকে ট্রেন চালানো হবে রাজ্য জুড়ে ।

Back to top button