কবে থেকে ঢুকবে লক্ষীর ভান্ডারের টাকা? এবং কারা পাবেন? জানিয়ে দিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী! রইল বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- ইতিমধ্যে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্র জমা নেওয়ার কাজ অর্থাৎ সরকার ক্যাম্পের কর্মসূচী শেষ হয়ে গিয়েছে ১৬ সেপ্টেম্বর এবং সরকারি তথ্য অনুযায়ী এমনটা জানাচ্ছে যে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সর্বমোট ৯৩ হাজার ক্যাম্প করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল । কিন্তু অনিবার্য কারণবশত সে জায়গায় ৯১,৮০০ এর ক্যাম্প করা সম্ভব হয়েছে । সেই ক্যাম্পে প্রায় তিন কোটির বেশি মানুষ উপস্থিত হয়েছে ।

সবথেকে বেশি আবেদনপত্র জমা পড়েছে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য । এরপর স্বাস্থ্যসাথী এবং কাস্ট সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন পত্র জমা পড়েছে তবে যে সমস্যাটি দেখা যাচ্ছে সেটি হল এসএমএস সংক্রান্ত আবেদনপত্র গ্রহণ হয়েছে কিনা। । লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন করার পরও সঠিকভাবে এখনো পর্যন্ত এসএমএস আসে নি । অনেকেই হয়তো বলছেন যে তারা আবেদন সঠিক মাত্রায় করার পরও আবেদন আসেনি। এই এসএমএস আসেনি এক্ষেত্রে করণীয় কি?

কিভাবে তারা বুঝবে যে তাদের আবেদন পত্র গ্রহণযোগ্য হয়েছে কি হয়নি বা তারা কিভাবে বুঝবে যে তাদের টাকা কবে পাওয়া যাবে । এ ব্যাপারে নানা জায়গা থেকে নানান ধরনের প্রশ্ন উঠে আসে । কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মনটা জানিয়েছেন যে গত সেপ্টেম্বরে সরকার শেষ হয়েছে সেখানে প্রচুর পরিমাণে আবেদনপত্র জমা পড়েছে । সরকারি আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আবেদনপত্র খতিয়ে দেখে। অনেকের একটি এসএমএস এসেছে অনেকে আবার দুইটি এসএমএস এসেছে এবং অনেকের এসএমএস আসেনি ।

কিন্তু এমনটা হতেই পারে যে আপনাদের প্রত্যেকের আবেদনপত্র গ্রহণযোগ্য হয়েছে । এর পাশাপাশি অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে দেওয়া টোল ফ্রি নাম্বার ফোন করে আপনি আপনার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার দিয়ে কিন্তু আপনার অ্যাপ্লিকেশন আইডি জানতে পারেন তার পাশাপাশি জানতে পারেন যে এই মুহূর্তে আপনার আবেদন পত্র কোন অবস্থায় দাঁড়িয়ে রয়েছে অর্থাৎ আদতে গ্রহণ হয়েছে নাকি বাতিল হয়েছে সমস্ত কিছু জানতে পারবেন। তবে নবান্ন থেকে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এমনটা জানা যাচ্ছে যে যাদের আবেদনপত্র গ্রহণযোগ্য হয়েছে অথচ এসএমএস আসেনি তারা অতি অবশ্যই পুজোর আগে টাকা পেয়ে যাবে ।

Back to top button