অভিনেত্রী মিঠাইয়ের মেকআপ রুম, কিভাবে মেকাপ করে সে, সে কী সত্যিই কালো, নাকি কালো সাজে, দেখে নিন, রইল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- গত কয়েকদিন ধরেই টিআরপি নিরিখে যে ধারাবাহিকটি প্রথমে অবস্থান করছে সেটি হল মিঠাই এবং এই জনপ্রিয়তার এতোখানি সাফল্যের পেছনে যার অবদান অনস্বীকার্য বলাবাহুল্য যাকে দেখতে মানুষ টিভির সামনে বসে তিনি হলেন মিঠাই বা সৌমিতৃষা কুন্ডু ।তার এত সুন্দর মিষ্টি হাসি যে মুহূর্তের মধ্যেই মানুষের মন জয় করে নিতে পারে সকলের । তার পাশাপাশি অভিনয় দক্ষতা নিয়ে নতুন করে বলার কিছু থাকে না । অবশ্যই তার অভিনয় দক্ষতা অন্যান্য বাকি সকলে থেকে যথেষ্ট পরিমাণে ভালো । এবং স্বাবলম্বী তাইতো ধারাবাহিকটি এত জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

এই ধারাবাহিকের গল্প অনুসারে এমনটা দেখানো হয়েছে যে , একজন গ্রামের সহজ সাদাসিদে মেয়ের শহরের একটি বড় লোক বাড়িতে বিয়ে হওয়ার পর গল্প দেখানো হয়েছে । মিঠাই মিষ্টি তৈরি করতে পারে ভালো করে । এবং সেই মিষ্টি জাদু বলেই কু-পোকা-ত তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা । তাই তো শ্বশুরবাড়ি থেকে গেছে সে ধীরে ধীরে প্রিয় হয়ে উঠেছে বিশেষ করে দাদুর কাছে । মিঠাই বিয়ে করেছে সিদ্ধার্থকে অর্থাৎ যার অভিনয় জগতে সিদ্ধার্থ কে । এবং বিয়ে করার পর থেকেই একের পর এক অন্য কোনো ঝা-মেলা লেগেই থাকে তাদের মধ্যে ।

তবে অনুরাগীদের মনে প্রশ্ন ছিল যে মিঠাই চুল নাকি নকল এবার সেই বিষয়টি জানার জন্য মিঠাইয়ের মেকআপ রুমে পাড়ি দিয়েছিল কয়েক সাংবাদিক । এবং সেখান থেকে যে তথ্য উঠে এসেছে তা সত্যি বি-স্ফোরক । সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে ইউটিউবে সেখানে দেখা যাচ্ছে যে মেকআপ রুমের মধ্যে উপস্থিত থাকা সাংবাদিক মহিলাটি মিঠাই কে জিজ্ঞেস করছে যে তার চুল কি সত্যি নকল ? তিনি বলেছেন যে তার চুল একদমই আসল । এখনকার জেনারেশন এর ছেলেমেয়েদের শর্ট হেয়ার অর্থাৎ ছোট চুল বেশি পছন্দ তাই যদি তারা কোন বড় চুল বিশিষ্ট মানুষকে দেখে তখনই বলে দেয় যে সেটা নকল

কিন্তু এমনটা নয় । এমনকি তিনি নিজের চুল টেনে অবধি দেখিয়েছে। তার পাশাপাশি জানিয়েছেন যে বেশ কয়েকদিন তার শরীর খারাপ থাকার জন্য তিনি শ্যুটিং সেটা আসতে পারেননি । প্র-চণ্ড গরমে শ-রীর ভী-ষণভাবে খা-রাপ হয়ে গেছিল তার । আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না যে মিঠাইয়ের অভিনয় জগতে পদার্পণ ঘটেছে এই ধারাবাহিকের মাধ্যমে নয় । গত পাঁচ বছর ধরে তিনি অভিনয় জগতের সাথে যুক্ত রয়েছেন ‘এ আমার গুরুদক্ষিণা’ ধারাবাহিকের নেগেটিভ চরিত্রে প্রথম অভিনয় করেন।

তার পর ‘জয় কালী কলকাত্তাওয়ালী’, ‘গোপাল ভাঁড়’, ‘অলৌকিক না লৌকিক’ ইত্যাদি সিরিয়ালে দেখা যায় তাকে। পরবর্তীতে সুযোগ আসে ‘কনে বউ’-এর প্রধান চরিত্রে। এই ধারাবাহিকের কাজ শেষ হতে না হতেই সুযোগ পান ‘মিঠাই’-এ। এক সাক্ষাৎকারে মিঠাই বলেন যে তাকে কখনোই অডিশন দিতে হয়নি কখনো। একটা সময় একটি ব্র্যান্ডের হয়ে মডেলিং দিয়ে শুরু হয় সৌমিতৃষার পথচলা। প্রায় পাঁচ বছর ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে রয়েছেন। এবার পেয়েছেন বড় ব্রেক। এই ধারাবাহিকের জন্য নাকি তাকে ময়রার কাছ থেকে শিখতে হয়েছে কী ভাবে দুধ জ্বাল দিতে হয়, কী ভাবে ছানা পাকাতে হয়। এছাড়াও জিলিপি ভাজার কায়দা, মনোহরা বানানোও আয়ত্তে আনতে হয়েছে তাকে।

Back to top button