পশ্চিমবাংলায় যেদিন থেকে চলবে লোকাল ট্রেন, জানিয়ে দিলেন মমতা ব্যানার্জি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের দেশে এরকম অনেক মানুষ আছে যাদের জীবন নির্ভর করে লোকাল ট্রেনের ওপর । কিন্তু যেহেতু দেশের এই ভ-য়াব-হ পরি-স্থিতিতে লোকাল ট্রেন সম্পূর্ণ রকম ভাবে বন্ধ রয়েছে তাই তাদের রুজি রোজগারে পড়েছে বিপুল পরিমাণে টান বা সংকট । সাধারণ নিত্যযাত্রী মানুষেরা প্রতিনিয়ত বি-ক্ষোভ দে-খাচ্ছে বিভিন্ন স্টেশনে। আমরা এর আগে দেখেছি হাওড়া এবং শিয়ালদা ডিভিশনের বিভিন্ন স্টেশনে একাধিক বি-ক্ষোভ চিত্র ফুটে উঠেছে ।

কখনো পু-লিশের উপস্থিতি এবং পু-লিশের অনুপস্থিতিতে হয়েছে এই ঘটনা। এই বিক্ষোভের মুখে পড়ে পূর্ব রেলের কর্মকর্তারা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে সমস্ত বিষয়টি জানান এবং তারপর একটি চিঠির মাধ্যমে অনুমতি চেয়ে পাঠান যাতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই রাজ্যের বুকের লোকাল ট্রেন চালানো পরামর্শ দেন । কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেখান থেকে কোন রকম কোন গ্রাহ্য করেনি বলে জানা যাচ্ছে পূর্ব রেলের তরফ থেকে । অপরদিকে প্রতিনিয়ত বড় আকার ধারণ করছে এই বি-ক্ষোভ ।

লোকের মনে প্রশ্ন আসতে শুরু করছে যে একজন মানুষ কাজে যাবে কর্মসংস্থান বাড়বে খাবার জড়াতে পারবে এবং অন্য সম্প্রদায়ের মানুষ কাজে যেতে পারবে না সেটা কেমন করে হতে পারে মুখ্যমন্ত্রী? দয়া করে আমাদের বিষয়গুলো একটু নজর রাখুন এই ধরনের মন্তব্য উঠে গেছে সামনের সারিতে। পূর্ব রেলওয়ের কর্মকর্তারা পুনরায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে একটি চিঠি পাঠায় ।

কিন্তু ঐদিন সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান যে এই মুহূর্তে তৃতীয় ঢে-উ আ-ছড়ে প-ড়তে চ-লেছে গোটা রাজ্য জুড়ে । তাই কোনো অবস্থাতেই লোকাল ট্রেন চালানো যাবে না । এমনকি ল-কডা-উন এর সময়সীমা তিনি আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন । তবে ছাড় দেয়া হয়েছে অনেকগু-লি ক্ষেত্রে সরকারি এবং বে সরকারি বাসের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে ৫০% কর্মী নিয়ে যাতায়াত করতে পারবে এই সমস্ত পরিষেবাগু-লি । কিন্তু লোকাল ট্রেন এই মুহূর্তে কোন রকম ভাবে চালানো সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী। যার ফলে পুনরায় চিনতে পেরেছে সাধারণ নিত্যযাত্রীদের ।

Back to top button