মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বাংলায় এই পাঁচ জেলায় টানা তিন দিন হতে চলেছে তুমুল বৃষ্টি। সতর্কতা জারি আবহাওয়া দপ্তরের!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- প্রত্যেক রাজ্যবাসীর মনে এখন একটাই প্রশ্ন বর্ষা কবে সম্পূর্ন রকম ভাবে পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করবে । যদিও এর উত্তর বেশ কিছুদিন আগে মৌসম ভবন থেকে দেওয়া হয়েছিল । তারা জানিয়েছিলেন যে ১১ জুনের মধ্যে বর্ষা প্রবেশ করে যাবে পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে । কেরলে ইতিমধ্যে করলেও পশ্চিমবঙ্গে আসছে কিছুটা পরিমাণ দেরি হবে আর তারই মধ্যে শোনা গেল অন্য একটি খবর ।

বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে নতুন একটি নি-ম্নচা-প এবং ক্রমশ ঘ-নীভূ-ত হচ্ছে। যার ফলে দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলা থেকে অ-তি ভা-রী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে তার পাশাপাশি রয়েছে ব-জ্রবি-দ্যুৎ এর সম্ভাবনা। পরিবেশে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকার জন্য সকালে অস্বস্তিকর জনিত গরম দেখা দিচ্ছে এবং শেষের দিকে অর্থাৎ সন্ধ্যের দিকে প্রত্যেক মানুষই চাইছে যাতে একটু বৃষ্টি হয়ে স্বস্তি হয় পরিবেশে । কিন্তু তেমনটা আর হচ্ছেনা । ক্রমশ বেড়েই চ-লেছে উ-ত্তাপ। এমতাবস্থায় প্রত্যেক রাজ্যবাসীর মনে প্রশ্ন থাকতে যে কবে আসছে বর্ষা ।

তবে বর্ষার আগমন ঘটতে চলেছে একটি নি-ম্নচা-পের হাত ধরে । এবং সেই নিম্নচাপ বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে বলে জানান আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। এই নিম্নচাপের জেরে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগু-লিতে ব্যা-পক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে । তবে বিশেষ করে এই চারটি জেলাতে ঝো-ড়ো হা-ওয়ার সাথে ব-জ্রবি-দ্যুৎ এর সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে মৌসম ভবন । এবং এই চারটি জেলার মধ্যে রয়েছে মালদা মুর্শিদাবাদ পশ্চিম বর্ধমান বীরভূম বাঁকুড়া।তার সাথে সাথে ৩০-৪০ কিলোমিটার বেগে ঝ-ড় হওয়ার কথা জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর ।

আমরা গত দুদিন আগে দেখেছিলাম যে গোটা রাজ্যে ২৬ জনের মৃ-ত্যু হয়েছে বর্জ্য বি-দ্যুৎ এর ক-বলে প-ড়ে । এবং এই নি-ম্নচা-প এর ফলে তিনদিন ধরে বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে আলিপুর আবহা দপ্তর । যার ফলে নবান্ন থেকে সর্তকতা জা-রি করা হয়েছে বেশ কয়েকটি জায়গাতে । ইতিমধ্যে সমস্ত জেলার জেলা শা-সকের প্রস্তুত থাকার বার্তা প্রদান করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

Back to top button