এবার থেকে এই পদ্ধতিতে দেওয়া হবে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম! চালু হলে নতুন নিয়ম! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে আবেদন করার জন্য দুয়ারের সরকার ক্যাম্পে ব্যাপক পরিমাণে ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে । এবং এতটা পরিমাণ এর হচ্ছে যে সেখান থেকে যে কোন সময় বড়সড় বিপদ দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে । এমনকি ছড়িয়ে পড়তে পারে সংক্রমণ আরো দ্রুত হারে । তাই সেই বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।এবার সে বিষয়েও সমাধান করতে বিশেষ সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি এবং এই সিদ্ধান্তের ফলে আগামী দিনে জামায়াত অনেকটা কমিয়ে আনা যাবে বলে অনুমান করছে অনেকে ।

পশ্চিমবঙ্গ শিশু সুরক্ষা এবং নারী কল্যাণ দপ্তর থেকে এই লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প সূচনা করা হয়েছিল এবং নির্দেশিকা অনুসারে জানানো হয়েছিল যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড থাকা বাঞ্ছনীয় । কিন্তু আমাদের আশেপাশে এমন অনেক মানুষ আছে যারা হয়তো দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করার পরও স্বাস্থ্য সাথী কার্ড হাতে পায়নি তাদের ক্ষেত্রে বা যে সমস্ত মানুষের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নেই তারা কিন্তু লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য অতি অবশ্যই আবেদন করতে পারে ।

এর পাশাপাশি যে সমস্ত নথি পত্র বা ডকুমেন্টস আপনার সাথে করে নিয়ে যেতে হবে সেগু-লি হল আধার কার্ডের জেরক্স, স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জেরক্স, ব্যাংকের পাস বইয়ের জেরক্স ,বেশ কিছু রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি ,ভোটার কার্ডের জেরক্স ,আপনার কাছে যদি কাস্ট সার্টিফিকেট থেকে থাকে তাহলে কাস্ট সার্টিফিকেট এর জেরক্স অতি অবশ্যই আপনার সাথে নিয়ে যেতে হবে।

কিন্তু দুয়ারের সরকার ক্যাম্পে প্রচুর পরিমাণে ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে । যার ফলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে প্রতিটি বুদ্ধিবৃত্তিক ক্যাম্প করা হবে । অর্থাৎ দুয়ারে সরকার ক্যাম্প ছাড়াও প্রতিটি বুথে একটি করে ছোট ছোট ক্যাম্প বসবে । মানুষ এখান থেকে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্র সরকারিভাবে পেয়ে যাবে । কারণ সেখানে উপস্থিত থাকবে সরকারের আধিকারিকরা । ইতিমধ্যে এই ব্যবস্থা গ্রহণ করার ফলে অনেক ভিড় কমিয়ে আনা গেছে আয়ত্তে আনা হয়েছে ।

Back to top button