দুটি ব্লে’ড ও একটু তার দিয়ে দারুন কায়দায় যেভাবে বেশ অনেকক্ষণ জ্বালিয়ে রাখা যায় যে কোনো লাইট, রইল পদ্ধতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমরা উন্নত হয়েছি । তার সাথে সাথে বেড়েছে জীবনের যাবতীয় চাহিদা । প্রতিনিয়ত ও পাল্টাচ্ছে ব্যস্ততম এই সমাজের চিত্র । নিজেদেরকে উন্নত করার চেষ্টা করে চলেছি আমরা প্রতিনিয়ত । বাড়ছে বিভিন্ন জিনিসের ব্যবহার । আগেকার যুগে বিদ্যুতের ব্যবহার মানুষ জানতো না । কিন্তু বর্তমান প্রজন্মের প্রতিটি বাড়িতে এখন বিদ্যুতের সংযোগ রয়েছে । এমনকি যে সমস্ত গ্রামের কথা মানুষ এখনো ঠিক মতন ভালো করে জানে না সেই সমস্ত গ্রামে পৌঁছে গেছে বিদ্যুতের সংযোগ। শুধুমাত্র বিদ্যুতের সংযোগ নিয়ে নিলাম আর সমস্ত ঝামেলা মিটে গেল তেমনটা কিন্তু নয় ।

তার পাশাপাশি এখন মোটা অংকের টাকা মেটাতে হয় বিদ্যুতের বিলের পিছনে । অর্থাৎ ব্যবহার বেড়েছে ঠিক কথা কিন্তু তার সাথে সাথে বেড়েছে তার দাম । সে ক্ষেত্রে অনেক মানুষের ইচ্ছে থাকলেও বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে পারে না । যেহেতু তাদের আর্থিক অবস্থা ভালো নয় তাই এখনো আধুনিকতার ছোঁয়া লাগতে দেয়নি তাদের মধ্যে । তবে এবার তাদের জন্য এসেছে সুখবর । কারণ সম্প্রতি জানা গেছে যে কোনরকম বৈদ্যুতিক সংযোগ ছাড়াই জ্বালানো যেতে পারে কোন ঘরের আলো ।

প্রতিনিয়ত আমরা বিভিন্ন ধরনের ঘটনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে থাকি। এবং সে ঘটনা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল আমাদেরকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করে । বা জ্ঞান অর্জনে সাহায্য করে । ঠিক তেমনি একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে সম্প্রতি । সেখানে দেখা যাচ্ছে যে এক যুবক কোনরকম বৈদ্যুতিক সংযোগ ছাড়া অনায়াসে জ্বালিয়ে চলেছে একটি বাল্ব এবং কিভাবে সেটা হলো সেটা সম্পূর্ণ রকম ভাবে তুলে ধরেছে ওই ভিডিওতে। ভিডিও দেখা যাচ্ছে যে দুইটি তার দুইটি ব্লেড এর মধ্যে যুক্ত করা হয়েছে ।

তারপর দুইটি বাটির মধ্যে কিছুটা পরিমান জল নেওয়া হয়েছে এবং তার মধ্যে দিয়ে দেয়া হয়েছে এক চামচ করে নুন অর্থাৎ লবণ । এর দুটি পৃথক পৃথক বাটিতে নিমজ্জিত করে দেওয়া হয়েছে । তারপর তার এর বাকি অংশ যোগ করা হয়েছে একটি লাইটের মধ্যে তার সাথে যোগ করা হয়েছে একটি সুইচ । সুইচ এর মাধ্যমে আলো বন্ধ করা যেতে পারে । আপনি কি ভাবছেন এতে কখনো কি লাইট জ্বলা সম্ভব ? অবশ্যই সম্ভব । ঠিক তেমনটাই দেখানো হয়েছে ভিডিওতে । সুইচ দেওয়া মাত্র উজ্জ্বল হয়ে উঠল বাল্ব এর আলো । সেই ঘটনাটি অবাক করেছে সকল কে । যদিও বিজ্ঞানের বিভিন্ন ধরনের ঘটনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা আমাদেরকে শেখানো হয় স্কুলে।

Back to top button