ফেসবুক লাইভে এসে শাড়ি বিক্রি করছেন রচনা ব্যানার্জি!কটাক্ষ নেটিজেনদের! পাল্টা জবাব নায়িকার।

নিজস্ব প্রতিবেদন:- জি বাংলা দিদি নাম্বার ওয়ান এবং রচনা ব্যানার্জি দর্শকদের কাছে একটি পরিপূরক শব্দ বললে হয়তো খুব একটা ভুল হবে না । বিগত ১০ বছর ধরে একটানা রচনা ব্যানার্জি এই দিদি নাম্বার ওয়ানে সঞ্চালিকা কাজ করে চলেছেন। এবং প্রতিনিয়ত ধীরে ধীরে সে জনপ্রিয়তাকে অটুট রেখেছে। এর আগেই রচনা ব্যানার্জি কে দেখা যায় বিভিন্ন ছবিতে অভিনয় করতে। বাংলার অভিনয় জগতে একজন উজ্জ্বল মুখ ছিলেন তিনি একাধিকবার দুর্ধর্ষ ছবিতে অভিনয় করে রীতিমতো জয় করেছিলেন এই বাংলার দর্শকদের মন। কিন্তু সে রচনা ব্যানার্জি কেউ কটা-ক্ষের শিকার হতে হল তার নেটিজেনদের কাছ থেকে ।

১৯৭৪ সালের ২ অক্টোবর, কলকাতা, পশ্চিম বঙ্গ, ভারত এ জন্ম গ্রহণ করেন তিনি ।  প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে ৩৫টি সিনেমাতে অভিনয় করেন। তিনি বেশকিছু ওড়িশ্যা ছবিতে অভিনয় করেন ।।পড়ে বিয়ে করেন সিদ্ধার্থ মহাপত্র-এর সঙ্গে। এছাড়া তিনি অমিতাভ বচ্চনের সাথে হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেন। এছাড়া, তিনি উপেন্দ্র ও চিরঞ্জিবের সাথে দক্ষিণ ভারতের ছবিতে অভিনয় করেন। ৯০এর দশকে ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রে আসা নায়িকাদের মধ্য তিনি প্রথমসারির নায়িকা হিসাবে খ্যাতি পান। এই রচনা ব্যানার্জি।

দিদি নাম্বার ওয়ান এর পাশাপাশি রচনা ব্যানার্জি নতুন একটি ব্যবসা শুরু করেছেন যার নাম ছিল রচনার ক্রিয়েশন । এখানে মূলত তিনি বিভিন্ন বুটিক শাড়ীর ব্যবসা শুরু করেছেন। কিন্তু এই ব্যবসা শুরু করার সাথে সাথে তার অনুগামীদের কাছ থেকে শুনতে হয়েছে তাকে বিভিন্ন ধরনের কুরুচিকর মন্তব্য এবং কটাক্ষ ।অনেকের যুক্তি, লকডাউনে কাজ হারিয়ে যারা অনলাইনে শাড়ির ব‍্যবসা শুরু করেছিল সেই সব ছোট ব‍্যবসায়ীদের ব‍্যবসা মা-র যাবে এই তারকাদের দৌলতে। এমনকি কয়েকজন এও বলেছেন অন‍্য দোকান থেকে কম দামি শাড়ি এনে বেশি দামে বিক্রি করছেন রচনা ।

এতদিন চুপ চাপ থাকলেও এবার প্রকাশ্যে মুখ্য জবাব দিলেন রচনা ব্যানার্জি তিনি বললেন তাঁর শাড়ির ব‍্যবসা শুরু করায় অনেকে যে ক্ষুণ্ণ হয়েছেন তা তিনি জানেন। তাঁর প্রশ্ন, শাড়ির ব‍্যবসা করা কি খারাপ? দেশে লক্ষ কোটি মহিলা রয়েছেন। সকলেরই নিজস্ব শাড়ির ব‍্যবসা করার সুযোগ রয়েছে। তাই তাঁর শাড়ির ব‍্যবসায় কারোর ক্ষতি হবে না বলেই মনে করেন সঞ্চালিক। বরং তাঁর মতে, এতে অনেকেই অনুপ্রাণিত হবে বলেও মনে করেন তিনি। ‘রচনা পারলে আমরা কেন পারব না?’ এই অনুপ্রেরণাটাই তিনি দিতে চান। উত্তর শুনে নেটিজেনদের একাংশ রীতিমতো নিশ্চুপ ।

Back to top button