হেঁটে প্রচারে বেরিয়ে হটাৎ রাস্তার পাশের মিষ্টির দোকান থেকে মিষ্টি কিনে খেলেন অভিনেতা যশ, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- মাথায় রোদ নিয়ে সারছেন প্রচার সামনেই বিধানসভার ভোট । আর এই ভোট ঠিক করে দেবে আগামী দিনে কে থাকবে বাংলার ক্ষমতায় । এই নিয়ে ভোট প্রচার তু-ঙ্গে । এমনকি কোথাও কোথাও দেখা গেছে ধু-ন্দুমার কিছু কা-ন্ড । মনের পছন্দ মতন প্রার্থী না হওয়াতে তৃণমূল-বিজেপি উভয় দলের মধ্যেই লেগেছে গোষ্ঠী-দ্ব-ন্দ্ব । কিন্তু আপনি একটু ভালো করে লক্ষ্য করলে বুঝতে পারবেন বিজেপি এখন অব্দি সঠিকভাবে সব বিধানসভাতে প্রার্থী দিয়ে উঠতে পারেনি । বারবার কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীদের ডাকে দিল্লি যেতে হচ্ছে রাজ্যের নেতা-মন্ত্রীদের ।

তবে যাদেরকে এখনো পর্যন্ত প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে বিজেপি তারা প্রচারে কোন খা-মতি রাখেনি এবং রাখছেনা । একঝাঁক তারকা মুখ উভয় দলেই দেখা গেছে । বিজেপির হয়ে প্রচারে নেমেছেন অভিনেতা যশ সেনগুপ্ত । আর তাতেই মানুষের মধ্যে ধরা পড়েছে উ-ল্লাস । কখনো কখনো সোশ্যাল মিডিয়াতে সেই সমস্ত ছবিগুলো শেয়ার করেন অভিনেতা । কিন্তু সেই সমস্ত ছবিগুলো কমেন্ট সেকশন দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন যে যত মানুষ তাকে গ্রহণ করছে তার থেকে বেশি মানুষ তাকে বর্জন করছেন । এর কারণ অবশ্য জানা নেই।

ঠিক তেমনই সেদিন নিজের প্রচারে বেরিয়েছিলেন অভিনেতা যশ সেনগুপ্ত । তারপর মানুষের মধ্যে ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতন । প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে তিনি সাধারণ মানুষের কাছ থেকে জানতে চাই তাদের অসুবিধার কথা এবং তাদেরকে আশ্বস্ত করে যে এবার বিধানসভা ভোটে যদি বিজেপি সরকার আসে অর্থাৎ ডবল ইঞ্জিন সরকার আসে তাহলে তারা তাদের স-ম-স্যাকে খুব তাড়াতাড়ি সমাধান করবে । এমনকি পাড়ার মোড়ে একটি মিষ্টির দোকান থেকে তিনি মিষ্টি কিনে খান । এক সাংবাদিক তাকে জিজ্ঞেস করেন যে এই রোদ মাথায় নিয়ে তিনি যে প্রচার করছেন তাতে তার কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না ?

কারণ তাদের জীবনযাত্রা আমরা জানি অনেকখানি আলাদা । তার উত্তরে তিনি বলেন যে আমি রাজার ঘরে জন্ম নেইনি । আমি একজন সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে । স্ট্রা-গল করে , প-রিশ্রম ক-রে আমি আমার নিজের জায়গা তৈরি করেছে অভিনয় জগতে । বাসে ট্রেনে যাওয়া এগুলো আমার কাছে খুব সাধারন একটা ব্যাপার । আমার কোনো অসুবিধা হচ্ছে না । আর শুধুমাত্র আমি নয় আমার পাশাপাশি আমার দলের বিভিন্ন কর্মীরা আমার সাথে ঘোরাফেরা করছে । যশ এর এই কথাটি রীতিমতো মন ছুঁয়েছে অনেক অনুগামীদের এবং দলীয় কর্মীদের ।

Back to top button