সংসারে অভাবের তাগিদে সাইকেল চালিয়ে কলকাতায় এসে হাতে তৈরি মিষ্টি বিক্রি করছে রানাঘাটের যুবক!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- অ-ভা-বের তা-ড়নায় পড়ে মানুষ ঠিক কী কী করতে পারে তার ধারণা আমরা অনেকেই জানি না । ঠাণ্ডা ঘরে বসে আমরা ভাবি যে আমাদের জীবন অনেকখানি কঠিন । কিন্তু বাইরের পরিবেশে দিকে চোখ রাখলে আমরা দেখতে পাব এবং বুঝতে পারব যে পৃথিবীতে এমন অনেক ধরনের মানুষ আছে যাদের জীবন ক-ঠোর থেকে ক-ঠো-রতম । এবং এই ঘটনা সেই বাস্তব চিত্র ফুটে উঠল রানাঘাটের এই যুবকের সাথে।

আমরা দেখেছিলাম গত দু’বছর আগে রানাঘাটের স্টেশন থেকে গান গেয়ে ভাইরাল হয়েছিল রানু মন্ডল । রাতারাতি হয়ে গিয়েছিল স্টার । এবার সেই রানাঘাট থেকে পরিশ্রমী এক ছেলের খবর পাওয়া গেল । তবে তিনি স্টার হয়ে যাননি বরং অনুপ্রেরণা হয়েছেন লক্ষ লক্ষ বেকার যুবকের । আপনি হয়তো ভাবছেন যে ছেলেটি কি এমন করল ? ছেলেটি এমন কিছু করেছে যা শুনলে আপনিও অ-বাক হ-বেন। রানাঘাট থেকে কলকাতার দূরত্ব প্রায় দেড়শ কিলোমিটার।

যেতে সময় লাগে তার ছয় ঘণ্টা এবং এই ছয় ঘণ্টা একটানা সাইকেল চালিয়ে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেয় ভোর তিনটের সময় রানাঘাটের এই যুবক তিনটে নাগাদ যখন আমাদের মধ্য রাতের তখন কিন্তু রানাঘাটের এই সাগর সাইকেল চালিয়ে মিষ্টি বিক্রি করতে যাই কলকাতাতে । বিক্রি করে পুনরায় আবার ফিরে আসে রানাঘাটে পরদিন আবার একই ভাবে চলতে থাকে তার জীবনের রুটিন।অ-ভাবের তা-ড়নায় সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন সাগর । তারপর আর পড়াশোনা করা হয়নি । বাবা-মা এবং বোন চাষের কাজে যুক্ত ।

পরিবারের অ-ভাব দূর করতে কাঁধে তুলে নিয়েছেন এই সিদ্ধান্তকে । ৬০ কিলো ওজনের একটি বাক্স নিয়ে কলকাতার উদ্দেশে রওনা দেয় এই সাগর । মিষ্টির দাম মাত্র ,৫ টাকা । ল্যাংচা পান্তুয়া সহ একাধিক মিষ্টি পাওয়া যায় তার কাছে । দিনভর কলকাতার বুকে দাঁড়িয়ে বাঙালি ব্যবসায়ী বিক্রি করে পুনরায় হাড়-ভা-ঙ্গা পরিশ্রম করে ফিরে আসে তার নিজস্ব বাড়িতে । পরের দিন শুরু হয় আবার একইভাবে তার জীবনযাত্রা । তার এই ঘটনা সামনে আসে অনেকে আ-বেগ-প্র-বণ হয়ে পড়েছেন । চোখের কোনে দেখা গেছে জল । তার পাশাপাশি এই মুহূর্তে এই যুবক এই পশ্চিমবঙ্গের লক্ষ লক্ষ বেকারদের কাছে অনুপ্রেরণা ও শ-ক্তির উৎস হয়ে দাঁড়িয়েছে ।

Back to top button