সিকিম যাওয়ার প্ল্যান করছেন? তাহলে বাড়ি থেকেই কিনে নিয়ে যান এই জিনিস! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- গত দুই বছর ধরে ম-হামা-রীর জন্য রীতিমতো দরজা বন্ধ হয়ে গেছিল বিভিন্ন পর্যটক জায়গাগু-লিতে । যার ফলে মানুষকে একপ্রকার বাধ্য হয়ে ঘরে দিন কাটাতে হতো । এবং বহুদিন ধরে ঘরে দিন কাটানো ফলে মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করে বহু মানুষ ।তাই এই একঘেয়েমি দূর করার জন্য অতি অবশ্যই বাইরে কোথাও ঘুরতে যাওয়া ভীষণভাবে প্রয়োজন । অপরদিকে পর্যটন শিল্প গু-লি তেমন ভাবে নতুন করে খোলার সিদ্ধান্ত এখন অব্দি গ্রহণ করেনি ।

তবে সিকিম রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে । পর্যটকেরা অবশ্যই সিকিম ঘুরতে যেতে পারবেন কিন্তু সাথে করে নিয়ে যেতে পারবেন না এই জিনিষটি । আমরা জানি যে আমাদের এই পরিবেশ প্রতিনিয়ত দূষিত হচ্ছে বিভিন্ন কারণে । শব্দ দূষণ থেকে শুরু করে জল দূষণ বায়ু দূষণ এবং মাটি দূষণের মতন একাধিক কারণ উঠে আসছে খবরের শিরোনামে । এবং এগুলি পিছনে মূলত আমরা রয়েছি ।

আমাদের অসচেতনতা জন্য এবং আধুনিকতা চক্করে পরতে গিয়ে আধুনিকতা চক্করে এই ধরনের কাজকর্মগুলো আমরা প্রতিনিয়ত করে চলি । যার ফলে প্রতিনিয়ত দূষিত হতে থাকে আমাদের পরিবেশ । দূষণের হাত থেকে সিকিমকে রাজ্য কোন রাজ্যকে মুক্ত করতে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিকিম রাজ্য সরকার। সিকিম রাজ্য সরকার এর আগে দেশের মধ্যে ১০০% দূষণমুক্ত রাজ্য হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিল । তবে এবার আরও দূষণমুক্ত করার লক্ষ্যে রয়েছে সিকিম ।

পর্যটকদের উদ্দেশ্যে এমনটা জানানো হয়েছে যে এবার থেকে পর্যটকেরা প্লাস্টিকের বোতল বা পানীয় জল নিয়ে সিকিম রাজ্য প্রবেশ করতে পারবে না । পর্যটকদের স্থানীয় পানীয় জল সরবরাহ করার ব্যবস্থা নেবে রাজ্য সরকার । প্লাস্টিকের বোতল পরিবেশের মা-রাত্মক রকমের দূষণ সৃষ্টি করে তা আমরা প্রত্যেকে জানি । তাই এবার থেকে সিকিমকে আরো দূষণমুক্ত রাখতে বদ্ধপরিকর রাজ্য সরকার ।

দূষণমুক্ত সিকিম রাজ্যের কোন জমিতে রাসায়নিক সার ব্যবহার করা হয় না, সমস্ত জমিতে ব্যবহার করা হয় জৈব সার।তবে এই নিয়মটি চালু করার আগে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে পানীয় জল বন্টন এর পরিকাঠামো যথেষ্ঠ স্বাভাবিক করা হবে বলেও ঘোষণা করা হয়েছে। রাজ্যবাসী এবং পর্যটকদের কাছে যাতে প্রাকৃতিক পানীয় জল বন্টন করা যায় তার ব্যবস্থা জানুয়ারি মাসের আগেই গৃহীত হবে

Back to top button