অজানা এই জ্ব’রে ক্রমশ আ’ক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা! কিভাবে রাখবেন শিশুর বিশেষ খেয়াল? জানিয়ে দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- করোনা ম-হামা-রীর ক-বলে পড়ে রীতিমতো দিশেহা-রা হয়ে গেছে গোটা দেশ তথা পৃথিবী । প্রথমবারের মতন যখন এর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছিল তখন তড়িঘড়ি করে ব্যবস্থা নিয়েছিলো চিকিৎসক মহল । কিন্তু কোন রকম ভাবে আটকানো সম্ভব হয়নি এই ম-হামা-রী কে । যার ফলে প্রথম ঢেউ এর পরিবর্তে এসেছিল দ্বিতীয় ঢেউ । আমরা জানি যে দ্বিতীয় ঠিক কতটা ভয়ঙ্কর হয়েছিল । অর্থনৈতিক বাজার থেকে শুরু করে যাবতীয় ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল এর প্রভাবে ।

কিন্তু পুনরায় তৃতীয় ঢেউ নিয়ে আশংকা প্রকাশ করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা । কিন্তু এই তৃতীয় ঢেউয়ে আ-ক্রান্ত হবে বেশিরভাগ শিশুরা । এমনটা আগাম বার্তা দিয়েছিল তারা । এবার সেই চিত্র পরিষ্কারভাবে ধীরে ধীরে ফুটে উঠেছে গোটা রাজ্যের বুকে। উত্তরবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলাতে বিপুল হারে দেখা যাচ্ছে এই অ-জানা জ্ব-রের রো-গীর সংখ্যা । তেমন কোনো প্রাদুর্ভাব না দেখা দিল বী-ভৎস পরিমাণে জ্ব-র আসছে ।

তার সাথে সাথে পেটে ব্য-থা ব-মি এবং পাতলা পায়খানা উপসর্গ নিয়ে প্রতিনিয়ত ভর্তি হচ্ছে একাধিক শিশু এবং যত সময় যাচ্ছে ততই বাড়ছে তার সংখ্যা । এব্যাপারে চিকিৎসকেরা চিন্তিত । তার সাথে সাথে চিন্তিত বাড়ির মা-বাবারা। কি করবেন এই মুহূর্তে এবং কি করবেন না তার একটা রূপরেখা দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা । অতি অবশ্যই বেশি করে জল খাওয়াবেন শিশুদেরকে । তার পাশাপাশি ও আর এস জাতীয় খাবার খাওয়াতে পারেন । মরসুম ফল খাওয়াতে পারেন শিশুদেরকে তার পাশাপাশি জ্বর হলে সামান্য পরিমাণে প্যারাসিটামল দিতে পারেন ।

যদি অতিরিক্ত মাত্রায় অতি অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কভিদ পরীক্ষা করান । এক লাফিয়ে বাড়ছে সং-ক্রমণ যার ফলে উদ্বিগ্ন সকলের । এমনটা জানা যাচ্ছে যে গত চার থেকে পাঁচ দিনে এক লাফে এই শিশুর ভর্তির সংখ্যা অনেকখানি বেড়ে গিয়েছে । প্রায় জেলা হাসপাতালের প্রতিটি ওয়ার্ডে কমপক্ষে ১০০-১২০ জন শিশু ভর্তি হচ্ছে প্রতিদিন এবং তাদের গড় বয়স পাঁচ বছরের মধ্যে । তাই নিজের বাড়ি শিশুদেরকে সাবধানে রাখুন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন এমনটা মন্তব্য স্বাস্থ্য সচিবের ।

Back to top button