ইউভানকে মেয়ে সাজালো মাসি দেবশ্রী, মাসির ঘা-ড়ে চেপে হালিশহরের সারা গ্রামে ঘুরে বেড়ালো ইউভান, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- নয় মাসের গণ্ডি পার করল ইউভন । এর মধ্যে তার মধ্যে দিয়ে গেছে বেশ অনেকগু-লি ঝ-ড় । কারন বেশ কিছুদিন আগে তার মা ক-রোনা আ-ক্রান্ত হয়েছিল । ছোট বাচ্চা অনেক কিছু শিখে গেছে । শিখেছে বায়না করতে একা একা হাঁটাচলা করতে শিখেছে এমনকি নতুন নতুন খাবারের স্বাদ অনুভব করতে গেছে। এখন অব্দি অভিনয় জগতের সাথে কোনরকম সম্পর্কযুক্ত না থাকলেও এই ছোট্ট বাচ্চা ছেলেটি জনপ্রিয়তা কিন্তু কোন অভিনেতা অভিনেত্রী থেকে কম নয় । ইতিমধ্যে তার নামে খুলে ফেলা হয়েছে একটি ফ্যান পেজ ।

মা হবার পর থেকে শুভশ্রী গাঙ্গুলী মধ্যে অনেকগুলো পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেছে । বেড়েছে দায়িত্ব । তার পাশাপাশি সমস্ত সময় কে-টে যায় তার ছেলেকে নিয়ে । ছেলের নানান ধরনের খু-নসু-টির ভিডিও মাঝেমধ্যে তিনি শেয়ার করেন তার সোশাল মাধ্যমে যেগুলো দেখে রীতিমতো আনন্দ এবং মজা নেই তার অনুরাগীরা । প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে তার জনপ্রিয়তা । এর আগে বেশ কয়েকটি ছবি উঠে আসতে দেখা গেছে সম্প্রতি দেখা গেল আরো একবার নেট মাধ্যমে । তবে সেটি তার মা শুভশ্রী গাঙ্গুলী করেনি বরং করেছে তার দিদি অর্থাৎ দেবশ্রী গাঙ্গুলী।

বেশ অনেকদিন পর দেবশ্রী গাঙ্গুলীর বাড়িতে অর্থাৎ নিজের মাসির বাড়িতে গিয়েছে ছোট্ট ছেলে ইউ ভান এবং সেখানে দেবশ্রী গাঙ্গুলীর কোলে দেখা যাচ্ছে তার ছোট্ট ছেলেকে । তিনি আদর করে তার মাথায় দুটি ফুল গুঁজে দিয়েছেন ।তারপর থেকে প্রশ্ন আসতে শুরু করেছে । তাহলে কি দেবশ্রী গঙ্গুলি ছেলে পছন্দ করেন না ? কিন্তু বাস্তবে চিত্রটা সম্পূর্ণ আলাদা। মাথায় ফুল গুঞ্জা অবস্থার ছবি পোস্ট করে দেব গাঙ্গুলী লিখেছেন না, “আমি তোমাকে নয় মাস ধরে বহন করতে পারিনি বাবা। তবে আমি আমার বাকি জীবন টি তোমাকে ভালোবাসতেই,

তোমাকে রক্ষা করতে এবং তোমাকে হ্যাপি করার জন্য যা যা প্রয়োজন আমি তা করে যাচ্ছি। ‘শুভ নয় মাস বেবি যান’ “। দেবশ্রী গাঙ্গুলীর এই পোস্টের পর রীতিমতো পুনরায় বেড়েছে তার জনপ্রিয়তা । এবং তার অনুরাগী মহলের মধ্যে দেখা গেছে উ-ত্তেজনা । ছবিটি কমেন্ট সেকশন ভরে গেছে শুভাকাঙ্ক্ষী মানুষদের মন্তব্যের ।পাশাপাশি অনেকে জানিয়েছেন আগামী দিনে যেন সুন্দর হয়ে যেন সে বড় হয়ে মানুষের মতো মানুষ হতে পারে । যে ছেলে পরিবারের নয়নের মনি , যে ছেলে দ-খল করে খবরের শিরোনাম সেই ছেলের মুখ কিন্তু সেদিন ছিল ভার । কিন্তু কেন তা এখনো জানা যায়নি ।

Back to top button