শুধু গান গাওয়া নয়! জীবনে একটিমাত্র সিনেমাতে করেছিলেন নায়কের ভূমিকায় অভিনয়, জনপ্রিয় গায়ক উদিত নারায়ণের এই গল্প অনেকেরই অজানা

নিজস্ব প্রতিবেদন: ৮ থেকে ৯ এর দশকে বলিউডের প্লেব্যাক গানের অন্যতম শাসক তিনি। তার গানে মুগ্ধ কয়েক প্রজন্ম। গায়ক হিসেবে ভূ ভারতে পরিচয় লাভ করলেও তার মধ্যে রয়েছে অভিনয় দক্ষতা। শিরোনাম দেখেই নিশ্চয়ই বুঝে গিয়েছেন আমরা কার কথা বলছি। আমরা বলছি আপনাদের সকলের প্রিয় গায়ক উদিত নারায়ণের কথা। জীবনে কয়েক হাজার গান গাওয়া এই মানুষটি অভিনয় করেছিলেন একটি চলচ্চিত্রে।

সেই চলচ্চিত্রের নাম এবং সঙ্গে উদিত নারায়ণের জীবনের কিছু অজানা দিক আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমরা আপনাদের জানাবো। যারা এই গায়ককে পছন্দ করে থাকেন অবশ্যই কিন্তু এই প্রতিবেদনটি একেবারে মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়বেন। চলুন তাহলে আর সময় নষ্ট না করে শুরু করা যাক।

১৯৫৫ সালের ১ লা ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন উদিত নারায়ণ। তার বাবা হরেকৃষ্ণ ঝা ছিলেন একজন কৃষক, অন্যদিকে তার মা ভুবনেশ্বরী লোকগান গাইতেন। উদিত নারায়ণের বাবা ছিলেন নেপালের নাগরিক। মা ছিলেন বিহারের মেয়ে। তিনি বলতেন তার জন্ম বিহারের সুপাউল জেলার বৈশী গ্রামের মামা বাড়িতে।

পরবর্তীতে যখন উদিত নারায়নকে পদ্মশ্রী সম্মান দেওয়া হয়েছিল তখন তার জন্মস্থান আর নাগরিকত্ব নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। অনেকের মতে উদিত নারায়ণের জন্মস্থান ভারত নয় ,নেপাল। ১৯৭০ সালে নেপালি রেডিওতে গান গেয়ে উদিত নারায়ণের কেরিয়ার শুরু হয়। সেই সময় মৈথিলী আর নেপালি ভাষায় লোকগান গাইতেন তিনি। এরপর লোকগান থেকে নেপালি আধুনিক গান শুরু করেন তিনি।

এবার ধ্রুপদী সংগীতের তালিম নিতে নেপাল থেকে তিনি বোম্বেতে চলে আসেন। ১৯৮০ সালে সংগীত পরিচালক রাজেশ রোশান তাকে ‘উনিশ বিশ’ ছবিতে গান গাওয়ার সুযোগ করে দেন। কেরিয়ারের শুরুতেই উদিত নারায়ন ডুয়েট করেন লতা মঙ্গেশকর থেকে শুরু করে মোহাম্মদ রফি, কিশোর কুমারের মতন কিংবদন্তি শিল্পীদের সঙ্গে। ১৯৮৮ সালে তিনি সুযোগ পান কেয়ামত থেকে কেয়ামত তক সিনেমায় গান করার।

এরপর থেকেই শুরু হয় ইতিহাস। তারপর জো জিতা বহি সিকান্দার ছবিতে অলকা ইয়াগনিক এর সঙ্গে তার পেহেলা নশা’ গানটি রীতিমতন সুপারহিট হয়ে যায়। আশির দশক থেকেই নিজেকে একটু একটু করে সফলতার দিকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন উদিত নারায়ন। তিনি বহু ভাষায় গান গেয়েছেন।বহু জাতীয় পুরস্কার সহ তিনি পেয়েছেন পদ্মশ্রী সম্মান। গায়ক ছাড়াও প্রযোজক হিসেবে তিনি জাতীয় সম্মান পেয়েছেন।

গায়ক হিসেবে তিনি ভূভারতে পরিচিত থাকলেও, তার যে অভিনয় দক্ষতা সে কথা হয়তো অনেকেরই অজানা থেকে গিয়েছে। ১৯৮৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত কুসুমে রুমাল নামক নেপালি রোমান্টিক ছবিতে অভিনয় করেন উদিত নারায়ণ। মুখ্য ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল তাকে। এই ছবিতে তার চরিত্রের নাম ছিল অমর। তার সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন নির্জা, তৃপ্তি নানাকরের মতন তারকারা। এই ছবিতে অভিনয় ছাড়া গানও গেয়েছিলেন তিনি। উদিত নারায়ন অভিনীত ত্রিকোণ প্রেমের এই সিনেমাটি দারুন ভাবে বাণিজ্যিক সফলতা পায়।

উদিত নারায়ণের অভিনয় ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছিল। আজও এই ছবিটি দেখতে পছন্দ করেন গায়কের ভক্তরা। তবে এরপর তিনি নিজের অভিনয় জীবনকে আর প্রসারিত করেননি। কিন্তু একটি সিনেমা দিয়েই তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন তার অভিনয় দক্ষতা। অভিনেতা তথা জনপ্রিয় গায়ক উদিত নারায়নকে আপনাদের ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই কিন্তু এই বিশেষ প্রতিবেদনটি আপনারা শেয়ার করে নিতে ভুলবেন না।

Back to top button