পুজোর মধ্যে প্রথমবার নিজের গাওয়া বাংলা গান দিয়ে বাজার কাঁপালেন কুমার শানুর ছেলে, মুগ্ধ নেটিজেনরা

নিজস্ব প্রতিবেদন: সংগীতের জগতে একটি উল্লেখযোগ্য নাম কুমার শানু। দীর্ঘ সময় ধরেই বলিউড থেকে শুরু করে টলিউড সব জায়গাতেই নিজের কণ্ঠস্বর দিয়ে জাদু করে রেখেছিলেন এই গায়ক। তবে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনের আলোচ্য ব্যক্তি কিন্তু কুমার শানু নন, আজকে আমরা বলবো কুমার শানুর ছেলে জান কুমার শানুর কথা। প্রসঙ্গত গানের চৌহদ্দিতেই বেড়ে উঠেছেন জান।

এ বছর তিনি প্রথম পুজো দেখবেন কলকাতার। তাই এ শহরের মানুষের জন্য নিয়ে এসেছেন তাঁর নতুন গানের ডালি। সূত্রের খবর অনুযায়ী বাবাকে সারপ্রাইজ দিতেই এই নতুন গান নিয়ে হাজির হয়েছেন জান। এই গান নিয়ে রীতিমত নস্টালজিক হয়ে পড়েছেন তিনি। জানা যাচ্ছে এই গানে সুর দিয়েছেন অরূপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং গানটি লিখেছেন প্রিয় চট্টোপাধ্যায়।শিল্পী–পুত্রের এই নতুন গানের নাম ‘ভালবাসার সুরে ঠিকানা।

এই গানের প্রসঙ্গে জানাতে গিয়ে জান কুমার শানু বলেন, “আমরা ছোটবেলা থেকেই বম্বেতে রয়েছি। তবে বাংলা কালচার কিন্তু আমরা ভুলে যাইনি। প্রত্যেক দুর্গাপুজোতে নতুন ক্যাসেট বা সিডি কেনা, ওটা কিন্তু আমরা বম্বেতেও করতাম যে দুর্গা পুজোতে কি নতুন গান এসেছে! আমিও একজন গায়ক এবং আমি চাই সেই সব গায়কদের তালিকায় থাকতে যারা দুর্গাপুজোতে গান বের করে থাকেন। পাশাপাশি এই বছর একটা বড় ব্যাপার হয়ে গেছে যে, বাবার সাথে যারা অনেক ক্লোজভাবে কাজ করেছেন অরূপ কাকু এবং প্রিয় চ্যাটার্জী তারা দুজনেই আমাকে এই গানের জন্য অনেক সাহায্য করেছেন”।

সঙ্গে জান কুমার শানু আরও যোগ করে বলেন যে, “এখন লড়াই করা শিখে গিয়েছি। কারন আমি আমার পজিটিভ দিকের উপর বেশি ফোকাস করি। দেখেছি যে, পজিটিভ এর উপর ফোকাস করলে নেগেটিভ জিনিসগুলো নিজে থেকেই সরে যায়”। অন্যদিকে সুরকার অরূপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,“ এই গানটা যখন আমি কম্পোজ করছিলাম তখন অনেকটা সময় নিয়ে করেছি।

যাতে আমি মানুষের মন পড়তে পারি অর্থাৎ এটা তাদের মন স্পর্শ করছে কিনা! পরবর্তীকালে গিয়ে দেখলাম গানটা একটা অদ্ভুত জায়গায় চলে যাচ্ছে। সেটাই আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিল। জানের গলায় যে এত সুন্দর মেলোডি লাগছে আপনি খুব আশাবাদী যে গানটা নিশ্চয়ই কিছু না কিছু ইতিহাস গড়তে চলেছে”।

প্রসঙ্গত, বাবা জনপ্রিয় শিল্পী কুমার শানু। তারকা সন্তানের তকমা এবং তার জেরে তুলনা যে তাঁর সঙ্গী হবেই, তা বিলক্ষণ জানেন শানু-তনয়। তবে তাঁর মতে, এই তুলনা, সমালোচনা তাঁর পরম পাওয়া। এবং সবের জন্য তিনি কৃতজ্ঞ বাবা কুমার শানুর কাছে। নতুন পুজোর গান তাই আসলে পরিবারের চিরাচরিত রীতির প্রতিই তাঁর শ্রদ্ধাজ্ঞলি।কথায় কথায় জান খবর দিয়েছেন, এই পুজোতে মুক্তি পেল বাবা কুমার শানুরও একটি গান। পরিবারে তাই এখন খুশির হাওয়া।

এই মুহূর্তে জান গান মুক্তির অপেক্ষায়। তার পরেই গান শোনাবেন বাবাকে। একেবারে সামনাসামনি দেখবেন বাবার অভিব্যক্তি। এর আগে বহু অনুষ্ঠান করেছেন। তিনি এর আগে। সেই সব মঞ্চে বাবার হিট গান না শুনিয়ে নিস্তার মেলেনি। এ নিয়ে গর্বেরও শেষ নেই জানের। তাঁর মতে, এখন তাঁর পরিচয় তিনি কুমার শানুর ছেলে। আগামীতে এক দিন জানের বাবা হিসেবে কুমার শানুর পরিচিতি তৈরি করারও স্বপ্ন দেখেন তিনি।

Back to top button