মন্দিরে শিব লি-ঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে সা-প, হাজার চেষ্টাতেও সরাতে পারলোনা কেও, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- কথাতে আছে” বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর” অর্থাৎ আপনি যে জিনিসটি উপর বা যে বিষয়টির ওপর বিশ্বাস করেন সেটি আপনার কাছে সঠিক বলে মনে হবে । কিন্তু অন্যের কাছে সেটি ভুল হিসেবে গণ্য হতে পারে । এবং এই বিষয় নিয়ে যদি আপনার ত-র্কা-ত-র্কি ক-রেন তাহলে আসলে কোন সমাধানই বেরিয়ে আসবে না । আপনি চাইবেন আপনার বিশ্বাস কে সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে এবং অপরদিকে থাকা ব্যক্তি ও চাইবে তার বিশ্বাসকে সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে । কিন্তু ফল হবে না কিছু ।

ভারতীয় শাস্ত্রে অনেকগু-লি প্রবাদ কথা আছে এবং তাদের মধ্যে একটি কথা হল যে শিব ঠাকুরের অর্থাৎ দেবাদিদেব মহাদেবের গলায় সা-পের বসবাস । অর্থাৎ গোটা শরীর জুড়ে পেঁ-চিয়ে থাকে লম্বাকৃতির বি-ষাক্ত কোনো সা-প । যদিও এমনটা আমরা ছবিতে বা বিভিন্ন কাস্টম ভিডিওতে দেখে থাকি । আদতে এই ঘটনা কতখানি সত্যি তার প্রমাণ আজ অব্দি পাওয়া যায়নি । তবে বহু যুগ ধরে এই বিশ্বাস সত্য তে পরিণত হয়েছে এমনটা বলা যেতে পারে। এবার সেই বিশ্বাসকে সীলমোহর দিল সম্প্রতি একটি ঘটনা ।

পাশাপাশি আপনাদেরকে জানিয়ে রাখি এবং আপনারা সকলে এটাও জানেন যে সোশ্যাল মিডিয়া বর্তমান যুগে ধা-রালো তম হা-তি-য়ার । রা-গ অ-ভিমান হাসি-কা-ন্না শিক্ষামূলক সামাজিক-রাজনৈতিক সকল ধরনের ঘটনা মিশ্রিত একটি মাধ্যম সোশ্যাল মিডিয়া । এক ছাদের নিচে পাওয়া যায় সবকিছু । কাজেই প্রতিদিনই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এই সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম গু-লি । সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যা ব্যা-পক জনপ্রিয়তা সৃষ্টি করেছে। সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সেখানে দেখা যাচ্ছে যে একটি বটগাছের নিচে শিবলিঙ্গ রাখা আছে এবং প্রতিনিয়ত গ্রামবাসীরা সেটিকে পুজো করেন । এমনটাই দেখে মনে হচ্ছে ।

কিন্তু হঠাৎ একদিন গ্রামবাসীরা লক্ষ্য করেন যে সে শিবলিঙ্গ কে পেঁচিয়ে রয়েছে আস্ত একটি সাপ এবং রীতিমত ভ-য়ং-ক-র-ভাবে ফ-না তু-লে রয়েছে সে । ঠিক যেমনটা আমি আপনি বা আমরা ভিডিও বা কোন ছবিতে দেখে থাকি । ঠিক সেরকমই চিত্র ফুটে উঠেছে ওই ভিডিওর মাধ্যমে । যা দেখে গ্রামবাসীরা রীতিমত অবাক । তার পাশাপাশি তারা আরো বড় করে পুজো শুরু করে দেয় । মুহুর্তের মধ্যে ভিডিওটি ছ-ড়িয়ে প-ড়েছে সর্বত্র । তার পাশাপাশি এই ধরনের ঘটনা বারবার দেখার জন্য অনেকের শেয়ার করে রেখেছে নিজের টাইমলাইনে ।

Back to top button