এইভাবে মুসুরির ডাল রান্না করে খাওয়ার ফলে ধীরে ধীরে আপনার শরীরও বাঁধছে রোগের বাসা! জেনে নিন বিশেষজ্ঞদের মুখ থেকে!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- অন্যান্য শাকসবজি ফলমূল খাওয়ার পাশাপাশি আমরা কিন্তু ডালের ব্যবহার করে থাকি প্রতিনিয়ত । ইতিমধ্যে বাজারে বিভিন্ন ধরনের ডাল পাওয়া যায় । অনেকেই আবার ডালকে তৎক্ষণাৎ ভিজিয়ে রেখে কয়েক ঘন্টার মধ্যে রান্না করা শুরু করে দেয় । কিন্তু আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শাস্ত্র এমনটা জানাচ্ছে যে আপনি যদি এই পদ্ধতিতে ডাল রান্নার না করেন তাহলে কিন্তু ধীরে ধীরে আপনার শরীরে জন্ম নেবে মা-রাত্মক রো-গ ।

তাই অতি অবশ্যই প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ পড়ুন । কারণ এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে জানাবো কি উপায়ে রান্না করতে হবে । আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শাস্ত্রে এমন অনেক কিছু ধরনের উপদেশ উল্লেখ রয়েছে যেগুলো মেনে চললে হয়তো আমরা অনেকটাই সমস্যা এড়িয়ে চলতে পারব । কিন্তু ব্যস্ততম এই জনজীবনে আমরা তেমনটা খেয়াল করি না সেভাবে । আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা রাত্রে বেলাতে ডাল ভিজিয়ে রাখে এবং সকাল বেলায় সেই ডাল রান্না করে ।

আবার অনেকে আছেন যারা রান্না করার মাত্র এক ঘণ্টা আগে ডাল ভিজিয়ে রাখে । তাদের ক্ষেত্রে কিন্তু চরম বি-পদ ঘনিয়ে আসছে এবং শরীরে বাসা বাঁধছে মারাত্মক রোগ । কারণ এমনটা মনে করা হচ্ছে যদি আপনি ডাল আগে থেকে নির্দিষ্ট সময় ধরে ভিজিয়ে না রাখেন তাহলে কিন্তু বিপদে পড়তে পারেন । ডালে ফাইটিক অ্যাসিড এবং অন্যান্য রাসায়নিক গুলি থাকে যার প্রভাবে শরীর খনিজ এবং অন্যান্য পুষ্টি মূল্য গ্রহণ করতে অসমর্থ হয় ।

ডাল যদি ভিজিয়ে রাখা হয় তাহলে এই ধরনের সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায় খুব অল্প সময়ের মধ্যে। ডাল ভিজিয়ে রাখলে এর ভিতরের জটিল শর্করাগুলি ভেঙে যায় যার ফলে ডাল সহজেই হজম হয়ে যায়। গোটা মসুর, মুগ, অড়হড় ডাল রান্নার আগে অন্তত ১০ ঘন্টা মতো ভিজিয়ে রান্না করলে শরীরের কোন সমস্যা হবে না। ভাঙ্গা ডাল ৬ থেকে ৮ ঘন্টা ধরে ভিজিয়ে রাখলে কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না। রাজমা ছোলার ডাল ইত্যাদি অন্তত ১২ থেকে ১৮ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখাই শ্রেয়। এবং এই ডাল ভেজানো জল আপনি গাছের গোড়ায় ব্যবহার করতে পারেন এটি গাছের জন্য অত্যন্ত উপকারী হয় ।

Back to top button