ডিম আর ময়দা দিয়ে এই দারুণ গোপন পদ্ধতিতে এই দুর্দান্ত রেসিপিটা বানালে তার স্বাদ হয় দুর্দান্ত, খেতে হয় দারুণ টেস্টি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমরা যেহেতু প্রত্যেকে খেতে ভালোবাসি তাই বিভিন্ন সময় বাড়িতে বিভিন্ন নতুন নতুন ধরনের রান্না তৈরি করার চেষ্টা করে থাকি । এবং চেষ্টা থেকে মাঝেমধ্যেই উঠে আসে এমন বেশ কিছু ধরনের নতুন রান্না যেগু-লি আপনি খেলে হয়তো ভুলে যেতে পারেন মাংস বা মাছের স্বাদ । ঠিক তেমন একটি রান্না হচ্ছে মসুর ডাল । আপনি হয়তো শুনলে অ-বাক হ-বেন কারণ এই ধরনের রান্নার নাম হয়তো আপনি আগে শুনিনি । কিন্তু রান্না করে দেখলে আপনি এর স্বাদ ভুলবেন না কখনো।

শুধুমাত্র ইউটিউব থেকে বা অন্য কোন পাঠ্যপুস্তক পড়ে যে ভালো রাঁধুনী হওয়া যায় তেমন কিন্তু নয় । রান্না করার জন্য চাই একটি সুন্দর মন । যার মন যত পরিষ্কার এবং স্বচ্ছ সে ততো সুস্বাদু রান্না বানাতে পারে । এমনটা মনে করেন অনেকে । কিন্তু বর্তমানের এই সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে বিভিন্ন ধরনের উপকরণ অনলাইনে উপলব্ধি হওয়ার জন্য এখন প্রায় প্রতিটি বাড়ির মেয়েরা ভাল ভাল রান্না করতে শিখে গেছে। এবার জলখাবার জনিত কোন স-মস্যা হলে আপনি অনায়াসে করে ফেলতে পারেন এই রেসিপিটি ।

কারণ অতি কম সময়ের মধ্যে সবচেয়ে সুস্বাদু এই রেসিপিটি এর আগে আপনি কখনো শোনেননি । এটি তৈরি করার জন্য প্রথমে আপনাকে একটি বাটিতে ময়দা নিতে হবে এবং সেই ময়দার মধ্যে দিতে হবে সামান্য পরিমাণ নুন সামান্য পরিমাণ গুঁড়ো এবং এক চামচ তেল । এর পর সমস্ত উপকরণ কে ভাল করে নাড়তে হবে । তারপর তার মধ্যে দিতে হবে সামান্য পরিমাণ গরম জল ও টানটান একটি মিশ্রণ তৈরি করে ১০-১৫ মিনিট ঢাকা দিয়ে রেখে দিতে হবে। এরপর একটি পাত্রে নিয়ে নিতে হবে আগে থেকে সেদ্ধ করে রাখা আলু এবং তার মধ্যে যোগ করতে হবে আগে থেকে সেদ্ধ করে রাখা গ্রেট করা ডিমের টুকরো ।

তার মধ্যে দিতে হবে সামান্য পরিমাণ নুন কাশ্মীরি লঙ্কা জিরেগুঁড়ো ধনেগুঁড়ো সামান্য ধনে পাতা ইত্যাদি এবং সমস্ত উপকরণ গু-লি কে হাতের সাহায্যে ভাল করে মেখে নিতে হবে । এরপর যে ময়দা আমরা মেখেছিলাম সেই ময়দা থেকে লেচি কে-টে নিতে হবে এবং সেখান থেকে বড় আকৃতির একটি রুটি তৈরি করতে হবে । সে রুটি র মধ্যবর্তী অংশে দিতে হবে আলু এবং ডিম মিশ্রণটি ।তারপর চারদিক থেকে সেটি মুরে ফেলতে হবে । এরপর কড়াই এর মধ্যে গরম তেল দিয়ে সেই টিকে ভেজে নিন । তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে গরম গরম নাস্তা ।

Back to top button