অবশেষে কাজে ফিরছেন শেহনাজ! “সিদ্ধার্থ কে ছেড়ে একাই বাঁচতে হবে” – বললেন তিনি! দারুন ভাইরাল হল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- অবশেষে অনেক কা-ন্নাকা-টি রা-গ-অ-ভিমান এবং শ-রীরকে ক-ষ্ট দেওয়ার পর সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পেরেছে সেহেনাজ গিল । সিদ্ধার্থ শুক্লা মৃ-ত্যুর শো-ক তাকে গ-ভীর ভাবে আ-হত করেছে সে কথা আমরা প্রত্যেকে জানি । ইতিমধ্যে হাসপাতালে রয়েছেন তিনি । সেখানে প্রতিনিয়ত কা-ন্নাকাটি করে চলেছে । এমন কি কোন খাবার দাবার খাচ্ছে না যার ফলে স্বাভাবিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে ।

কিন্তু তিনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবার যে সিদ্ধার্থকে ছাড়াই যখন তাকে বাঁচতে হবে তখন তিনি তাই করবেন আর তার ফলেই তিনি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন। তবে একথা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই যে প্রেমিকের মৃ-ত্যু তার কাছ থেকে কে-ড়ে নিয়েছে গোটা পৃথিবীর সুখ শান্তি । কিন্তু বারবারই তার চোখের সামনে ফিরে আসছে তাদের একসাথে কাটানো মুহূর্তগুলো । যা পুনরায় সম্পূর্ণ রকম ভাবে ভে-ঙে চু-রে দিচ্ছে তাকে ভিতর থেকে এবার শেষ লাইভ ভিডিও কল প্রকাশ্যে উঠে এলো সিদ্ধার্থের শাহনাজ।

সিদ্ধার্থ শুক্লা অকাল প্রয়াণে রীতিমতো শো-কাহত গোটা বলিউড ইন্ডাস্ট্রি । তার পাশাপাশি টলিউড ইন্ডাস্ট্রি ও কিছুটা হলেও শোকাহত রয়েছে । কিন্তু সবথেকে কষ্ট যার বেশি সেটি হল সিদ্ধার্থ শুক্লা মা এবং তার প্রেমিকার । প্রতিনিয়ত সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে খবরের শিরোনামে উঠে আসছে তাদের একসাথে কাটানো মুহূর্তের কিছু ভিডিও যা বারবার আবেগপ্রবণ করে তুলছে সিদ্ধার্থ শুক্লা অনুরাগীদের ।

কিন্তু একবার ভাবুন সেই মানুষটার অবস্থা কিরকম হচ্ছে যিনি সিদ্ধার্থের সাথে একটা লম্বা সময় অতিক্রম করে এসেছে বা সময় কাটিয়ে এসেছে । সিদ্ধার্থ শুক্লা এই মৃত্যু মোটেও স্বাভাবিকভাবে মেনে নিতে পারছে না তার অনুরাগীরা তার পাশাপাশি তার প্রেমিকা শেহনাজ গিল এর এই অবস্থা দেখে আরো ভে-ঙে পড়ছে তার অনুরাগীরা। এমনটা বললে খুব একটা ভুল হবেনা তাই অনুরাগীদের কথা চিন্তা করে

এবং নিজের শরীরে কথা চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেয় যে পুনরায় তিনি আবার কাজে ফিরবেন। অতি শীঘ্রই হাসপাতাল থেকে ছুটি নিয়ে তিনি কাজে ফিরতে চলেছেন । যার ফলে তার অনুরাগীরা অত্যন্ত খুশি হয়ে তাকে টুইটারে শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়েছে । তিনি বলেছেন যে সিদ্ধার্থ যখন চেয়েছি এই পৃথিবীতে আমি একা থাকি একা বেঁচে থাকে তখন তার কথাই হবে সে যেখানেই থাকুক ভালো থাকুক তার সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো আমি যত্ন করে রেখে দেবো।

Back to top button