“যশ” ঘূ-র্ণিঝ-ড় আসলেই যে যে এলাকায় 24 ঘন্টা বন্ধ থাকবে বিদ্যুৎ পরিষেবা, যা জানাল CESC

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমরা দেখেছিলাম আগের বছর যখন রাজ্যের উপর তা-ণ্ডবলীলা চালিয়েছিল বি-ধ্বংসী ঝ-ড় ‘আমফান’ । তখন বি-দ্যুতের তার স্পৃ-ষ্ট হয়ে মা-রা গি-য়েছিলেন অ-নেকে । জল জমে থাকার পর তার প্রতি বিদ্যুতের তার পরে তাহলে সেটি তড়িৎ সুপরিবাহী হয় এবং কোন কারণে যদি সেই জল মানুষের সংস্পর্শে চলে আসে তাহলে তৎক্ষনাত তার মৃ-ত্যু ঘ-টবে । এবং এই ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছিল কলকাতার বুকে ।কিন্তু এবার যাতে সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে তার জন্য তৎপর সি ইএসসি ।

গত বছর যখন আ-ম্ফান তাণ্ডবলীলা চালিয়েছে ছিল গোটা রাজ্য জুড়ে তখন বিদ্যুতের সমস্যায় ভু-গছিলেন গোটা রাজ্যবাসী বহুদিন ধরে । এমন অনেক অঞ্চল রয়েছে যেখানে প্রায় মাসের-পর-মাস বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না । এবার যাতে সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে তৎপর হয়েছেন বিদ্যুৎ সংস্থা । মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্ন থেকে জানিয়েছিলেন যে এই ঘূ-র্ণি-ঝ-ড়ের প্র-ভাব থেকে অনেকগুণ বেশী হতে চলেছে ।

এবং মূলত ২০ টি জেলা ব্যা-পকভাবে ক্ষ-য়ক্ষ-তি হতে চলেছে । তা আগে থেকে সাবধান করেছেন তিনি এবং সতর্ক করেছেন সকলকে। তার পাশাপাশি সহযোগিতা চেয়েছেন । বলেছেন বি-পদের সময় শান্ত থাকুন সহযোগিতা করুন সকলকে। তার পাশাপাশি সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে যে সমস্ত অঞ্চলে যেমন যাদবপুর বেলেঘাটা ইত্যাদি অঞ্চলে ঝো-ড়ো হা-ওয়ার পরিমান বেশি থাকবে তাই সেই সমস্ত অঞ্চলে বন্ধ রাখা হবে বিদ্যুৎ সংযোগ । যেহেতু সেই সব অঞ্চলের তার এর সংখ্যা বেশি তাই বি-পদ এ-ড়াতে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা ।

এর পাশাপাশি যে সমস্ত জেলাগু-লিতে বেশি পরিমাণে ক্ষ-তিগ্র-স্ত হ-বার আ-শংকা রয়েছে সে সমস্ত জেলা-গু-লিতেও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা থাকবে বলে জানা গিয়েছে । তার পাশাপাশি আধুনিক গাছ কাটার যন্ত্রপাতি , দমকল বাহিনী এবং রেস্কিউ টিম তৈরি করেছে রাজ্য সরকার । তার পাশাপাশি তৈরি করে রেখেছে রিলিফ সেন্টার । এমনটা বলা যেতেই পারে যে রাজ্য সরকারকে প্রতিহত করতে।

Back to top button