“মা আমি বিয়ে করব, পড়াশোনা করতে আর ভালো লাগে না”- মায়ের কাছে কাতর মিনতি বাচ্চা ছেলের, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- পড়াশোনা করে যে গাড়ি ঘোড়া চড়ে সে” এমন কথা আমরা ছোটবেলা থেকেই শুনে আসছি। যদিও এই কথাটার তাৎপর্যপূর্ণ তা অনেকখানি । কারণ একথা সত্য যে যারা পড়াশোনা করে না তারা জীবনের উন্নতির শিখরে পৌছাতে পারেনা । কঠোর পরিশ্রমের পরও থেকে যায় বিফলতা । তাই ক-ঠোর প-রিশ্রমের পাশাপাশি যে জিনিসটি দরকার সেটি হল জ্ঞান , পাঠ্যপুস্তক এর জ্ঞান । তবে শুধুমাত্র যে পাঠ্যপুস্তক এর জ্ঞান থাকলেই হবে যেমনটা কিন্তু নয় তার পাশাপাশি সামাজিক ও জ্ঞান থাকা অত্যন্ত জরুরী ।

কিন্তু পড়াশোনা করতে কার ভালো লাগে বলুন? আপনি যখন ছোট ছিলেন তখন কি আপনার পড়তে ভালো লাগতো? নিশ্চয়ই পড়তে খুব একটা ভালো লাগতোনা । প্রত্যেকটা বাচ্চার মনেই বা প্রতিটি বাচ্চার মধ্যে এই ধরনের প্রবণতা লক্ষ্য করা যায় । তারা কখনও স্কুল যেতে চায় না তো কখনও আবার টিউশন যেতে চায় না আবার কখনও কখনও পড়াশোনা করতে মন চায় না তাদের । তাহলে আপনার মনে হয়ত প্রশ্ন আসতেই পারে যে কি করতে চায় মন তাদের? তাদের মন অনেক কিছু করতে চাই তবে এই বাচ্চাটির মন যেটি করতে চেয়েছে সেটি নিতান্তই অবাক করার মতন।

ছোট বাচ্চাদেরকে যারা টিউশনি পড়ান তারা হয়তো খুব ভালো রকম ভাবে জানবেন কীভাবে তাদের কে পড়াতে হয় । খুব ক-ষ্ট করে পড়াশোনায় মন বসাতে হয় তাদেরকে কারণ বাচ্চা বয়সের মন সারাক্ষণ চ-ঞ্চল থাকে । অলীক কল্পনা তে ভাসতে থাকে তারা । ঠিক তেমনি দেখা গেল ভিডিওতে এই বাচ্চাটির সাথে । সম্প্রতি একটি ভিডিও যথেষ্ট পরিমাণে ভাইরাল হয়েছে আর সেখানে তুলে ধরা হয়েছে এমন একটি ঘটনা রীতিমতো হাসির পরিবেশ সৃষ্টি করেছে । তার পাশাপাশি অ-বাক করে তুলেছে সকলকে ।

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একটি বাচ্চা ছেলে টিউশন পড়তে এসেছে কোন একটি ম্যাডামের কাছে এবং সে বায়না ধরেছে যে তার পড়াশোনা করতে নাকি ভালো লাগে না । বরং সে তার বাড়িতে তার বাবাকে অনেকবার বলেছে যেন তাকে বিয়ে দেয় । তার পড়াশোনার বদলে এই মুহূর্তে বিয়ে করতে ভালো লাগছে এবং বিয়ে করার পর সে নিজের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সে বলেছে বিয়ে করার পর তার শ্বশুর বাড়িতে থাকতে নাকি খুব ভালো লাগবে । এমন এক অলীক কল্পনা তে ভেসে রয়েছে ওই বাচ্চাটি । রীতিমতো এই ঘটনাটি সামনে আশাতে ব্যা-পক পরিমাণে হাসির পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে গোটা দুনিয়া জুড়ে । তার পাশাপাশি মুহূর্তের মধ্যে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে ওই বাচ্চা ছেলেটি।

Back to top button