বাড়িতে খুব সহজ এই পদ্ধতিতে একবার রান্না করুন ব্রয়লার চিকেন, সবাই খাবে পুরো চেটেপুটে!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- মুরগির মাংস খেতে কম বেশি কিন্তু সকলেই ভালোবাসেন। বিশেষ করে তা যদি ব্রয়লার মুরগি হয় তাহলে তো কথাই নেই। তবে অনেকেই আছেন যারা এই মুরগির মাংস সঠিক পদ্ধতিতে রান্না করতে পারেন না বা রান্না করলেও হয়তো সেটা সকলের মন মত হয় না। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের জন্য ব্রয়লার মুরগি রান্না করার একটি বিশেষ পদ্ধতি নিয়ে হাজির হয়েছি যা খুব সহজেই শিশু থেকে বয়স্ক সকলেই খেতে পছন্দ করবেন।

আজকে আমাদের প্রতিবেদনের শেয়ার করা পদ্ধতিতে যদি আপনারা মুরগির মাংস রান্না করে থাকেন সেক্ষেত্রে কিন্তু আর কোনদিনও আপনাদের চিন্তার মুখোমুখি হতে হবে না এ কথা নিঃসন্দেহে বলতে পারি। চলুন তাহলে আর দেরি না করে ব্রয়লার মুরগী রান্না করার এই বিশেষ পদ্ধতি জেনে নেওয়া যাক।

ব্রয়লার মুরগির মাংস রান্না করার বিশেষ পদ্ধতি:

১) রান্নাটি শুরু করার জন্য আপনাদের প্রথমেই প্রয়োজনীয় মসলা একত্র করে নিতে হবে, মসলা হিসেবে প্রয়োজন হবে কাঁচা লঙ্কা, পেঁয়াজ কুচি,রসুন কুচি আদার কুচি,জিরে,এলাচ,দারচিনি, তেজপাতা এবং শুকনো লঙ্কা। এবার আপনাদের কড়াইতে পরিমাণ মতন তেল নিয়ে কাঁচা লঙ্কা,শুকনো লঙ্কা এবং রসুন কুচিগুলিকে দিয়ে দিতে হবে। এবারে মিনিটখানেক সময় আপনাদের এই উপকরণ গুলিকে ভেজে নিতে হবে।

হালকা করে এই তিনটি উপকরণ ভেবে নেওয়ার পরে আপনাদের এলাচ আর দারচিনি এর মধ্যে যোগ করে দিতে হবে। জিরে দিয়ে মিনিটখানেক সময় নাড়াচাড়া করে মশলাটাকে অন্য একটি পাত্রে নামিয়ে রেখে দিন। এবার ওই কড়াই এর মধ্যেই আপনাদের আরো একটু তেল দিয়ে দিতে হবে। যে পেঁয়াজ আপনারা আলাদা করে রেখেছিলেন সেটা কেউ এবার এর মধ্যে দিয়ে যতক্ষণ পর্যন্ত না নরম হয়ে আসছে ভেজে নিতে হবে।

২) এর আগে আপনারা যে মসলাটি ভেজে রেখেছিলেন সেটাকে কিন্তু আপনাদের অবশ্যই ভালো করে বেটে নিতে হবে। চাইলে আপনারা ব্লেন্ডারের সাহায্যে ব্লেন্ড করেও নিতে পারেন। পেঁয়াজ বেরেস্তা তৈরি হয়ে যাওয়ার পর কড়াইতে আরও কিছুটা পরিমাণ তেল আপনাদের দিতে হবে।

ব্লেন্ড করে রাখা মসলা রান্নার এই পর্যায়ে কড়াইতে দিয়ে দিন। তারপর আপনাদের খুব ভালোভাবে মশলাগুলোকে কষিয়ে নিতে হবে। মসলা কষানো হয়ে গেলে আপনাদের এর মধ্যে পরিমাণ মতো লবণ আর হলুদ যোগ করে দিতে হবে। তেজপাতা যোগ করে যতক্ষণ পর্যন্ত না মসলা লাল লাল হয়ে আসছে ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো করে কষিয়ে নিতে থাকুন।

৩) মসলা লালচে ভাব দারুন করলে আপনাদের এর মধ্যে কেটে রাখা মুরগির মাংসগুলোকে দিয়ে দিতে হবে। তারপরে আপনাদের ভালো করে কিন্তু জল না দিয়েই মাংসগুলিকে কষিয়ে নিতে হবে।

মোটামুটি পাঁচ থেকে সাত মিনিট পর মাংসগুলি ভালোভাবে কষে গেলে গ্রেভির মধ্যে প্রয়োজন মতন জল দিয়ে দিন। আপনারা যতটা পরিমাণ ঝোল তৈরি করতে চান ঠিক ততটা পরিমাণ এবারে জল ব্যবহার করুন। কিছুক্ষণ পরেই দেখবেন এই জল কিন্তু ফুটতে শুরু করেছে অর্থাৎ বলক চলে এসেছে।

এবার আপনারা যে পেঁয়াজ বেরেস্তা তৈরি করে রেখেছিলেন সেটাকে এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে। শেষে কিছুটা পরিমাণ গরম মসলার গুঁড়ো ছড়িয়ে আপনাদের রান্নাটিকে কষিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

এই পদ্ধতিতে যদি আপনারা বয়লার মুরগী রান্না করে নিতে পারেন তাহলে কিন্তু আর কখনোই একঘেয়েমি লাগবেনা। রেসিপিটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই যেন পরিচিত বন্ধুবান্ধবদের সাথে শেয়ার করে নিতে পারেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button