মাসের শেষে বড় অঙ্কের বেতন! অথচ ঠিকঠাক রিডিং পড়তে পারেননা সরকারি শিক্ষিকা! রইলো ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- এ রাজ্যের শিক্ষার অবস্থা ঠিক কতটা নিম্নমানের বা বেকারত্বের সংখ্যাটি কত খানি বেড়ে চলেছে তা আমরা হয়তো চাক্ষুষ প্রমাণ পায় প্রতিনিয়ত । কিন্তু আমাদের রাজ্যের পাশাপাশি ও এমন অনেক রাজ্য রয়েছে যার অবস্থা পশ্চিমবঙ্গের থেকেও আরো অনেক শোচনীয় । এমন অনেক অভিযোগ উঠে এসেছে যেখানে বলা হয়েছে যে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত না হয় বা যোগ্য না হয়েও অনেকে মোটা মাইনের চাকরি পেয়ে যাচ্ছে ।

অথচ এই দেশে এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হবার পর একটা চাকরি জোটাতে পারছে না । অপরদিকে প্রতিনিয়ত যোগ্য চাকরি প্রার্থীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে দেশজুড়ে । কিন্তু এই ধরনের ঘটনা যে দেখতে হবে দেশবাসীকে সেটার জন্য প্রস্তুত ছিল না কেউ। প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিক স্কুলে মাঝেমধ্যে শিক্ষক নিয়োগ করা হয় যে সাবজেক্ট এর জন্য শিক্ষককে নিয়োগ করা হয় অতি অবশ্যই সেই সাবজেক্ট এর প্রতি তার জ্ঞান থাকা জরুরি ।

তার পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা জরুরী এবং একটি নির্দিষ্ট পরীক্ষার মাধ্যমে তাকে নিয়োগ করা হয় । কিন্তু যদি এমনটা দেখা যায় যে যে সাবজেক্ট এর জন্য তাকে নিয়োগ করা হয়েছে সেই সাবজেক্ট পড়তে পারছে না সেই শিক্ষিকা তাহলে ব্যাপারটা কেমন দাঁড়ায় । সেই ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের একটি গ্রামে । যা দেখে রীতিমতো জেলাশাসক তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠে এবং অবিলম্বে তাকে সাসপেন্ড করা নির্দেশ দেয় ।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের সিকন্দরপুরে একটি সরকারি স্কুলে। জেলা শাসক দেবেন্দ্র কুমার পান্ডে এদিন স্কুল পরিদর্শনে এসেছিলেন। স্কুলে এসেই তাঁর চ-ক্ষুচ-ড়কগাছ হয়ে যায়।স্কুলের শিক্ষিকাকে অষ্টম শ্রেণীর ইংরেজি পাঠ্য বইয়ের রিডিং পড়তে দেন ওই জেলাশাসক। কিন্তু দুলাইন ইংরেজি পড়তে গিয়ে কার্যত নাকানি-চোবানি খেতে হল ওই শিক্ষিকাকে।এই অবস্থা দেখে তে-লেবে-গুনে জ্ব-লে ওঠেন জেলাশাসক। অবিলম্বে এই শিক্ষিকাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দেন তিনি।

জেলা শাসকের অভিযোগ, বিএ পাস করার পরেও একটি লাইন পড়তে পারছেন না এই শিক্ষিকা। এটা কিভাবে সম্ভব। তবে শুধুমাত্র জেলাশাসক নয় তার পাশাপাশি গোটা দেশ ক্ষোভে ফেটে পড়েছে সে শিক্ষিকার প্রতি কিভাবে তাকে নিয়োগ করা হল প্রশাসন কোন অর্থ থাকে নিয়োগ করেছে সবকিছু জানার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে অনেকে অবিলম্বে প্রতারণা এবং জালিয়াতি বন্ধ হোক দেশজুড়ে এমনটা দাবি জানিয়েছে অনেকে ।

Back to top button