এর বাড়িয়ে দেওয়া হল লকডাউনের মেয়াদ, থাকছে একাধিক ক্ষেত্রে ছাড়!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আগের বছর দেশে ক-ড়াক-ড়িভাবে জা-রি করা হয়েছিল ল-কডা-উন । শুধুমাত্র ক-রোনা প-রিস্থিতি কি থামানোর জন্য । মানুষ এই মুহূর্তে যে হারে বেড়েই চলছিল করো না তাতে মানুষের জীবন রীতিমতো আ-শঙ্কায় প-ড়ে গি-য়েছিল । প্রতিদিন বেঁচে থাকা এক ক-ঠিন যু-দ্ধের সমান হয়ে উঠছিল । কিন্তু ল-কডা-উন জা-রি করে দেওয়ার ফলে সাধারণ মানুষ আর বাইরে তেমন ভাবে বের হতে পারত না । যার ফলে সং-ক্রমণ অনেকটা কমিয়ে আনার গিয়েছিল । এবার সেই মডেলকে কাজে লাগানো হয়েছে দ্বিতীয়বারে ক্ষেত্রে । অর্থাৎ এই বছর দ্বিতীয় করোনা পুনরায় ল-কডা-উন জা-রি করা হয়েছিল রাজ্য এবং ভারত সরকারের তরফ থেকে।

এই দ্বিতীয় ল-কডা-উনে একাধিক জিনিস এর পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল । সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ লোকাল বাস ইত্যাদি পরিবহনের বন্ধ ছিল । কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন যে ৩০ শে জুন অব্দি ল-কডা-উন কার্যকর হবে । পরিস্থিতি বুঝে পুনরায় ঘোষণা করা হবে এবং এখনও পর্যন্ত যেহেতু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে তাই পুনরায় ল-কডা-উন মেয়াদ বৃদ্ধি করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং আগামী ১৫ জুলাই অব্দি জা-রি থাকবে ল-কডা-উন । কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে ছাড় মিলেছে , যা নিম্নরূপ ।

১) যাত্রীবাহী সরকারি এবং বেসরকারি বাস চালানো যাবে তবে ৫০% যাত্রী নিয়ে ২) পার্লার সেলুন খোলার অনুমতি দিয়েছে এবার রাজ্য সরকার সকাল ১১ টা থেকে বিকেল চারটে অব্দি খোলা রাখা যেতে পারে তবে ৫০ শতাংশ বেশি কর্মী নিয়ে কাজ করা যাবে না ।

৩) সমস্ত বেসরকারি সংস্থা অফিস খোলা যাবে এখন থেকে কিন্তু সকাল ১০ টা থেকে বিকেল চারটে অব্দি এবং ৫০% কর্মী নিয়ে কাজ করতে হবে ৪) বেসরকারিকরণ কর্মচারীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা সেই বেসরকারি সংস্থাকে করে দিতে হবে ।

৫) জিম খোলার ক্ষেত্রে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তবে ৫০ শতাংশ লোক নিয়ে খুলতে হবে জিম ৬)সমস্ত রকমের খুচরো দোকান খোলার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। এখন থেকে খুচরো দোকান খুলে রাখা যাবে সকাল ১১ টা থেকে রাত্রি ৮টা পর্যন্ত।

৭) রাজনৈতিক থেকে ধর্মীয় এবং অন্যান্য সামাজিক অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে উপস্থিত থাকতে পারবেন সর্বোচ্চ ২০ জন ৮) রাত্রি ৯টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না।

Back to top button